চিটফান্ড মামলায় ডিভিশন বেঞ্চ ‘বদল’ করলেন প্রধান বিচারপতি, 

মোল্লা জসিমউদ্দিন,

সারদা – রোজভ্যালির মত বিভিন্ন  চিটফান্ড সংক্রান্ত মামলার শুনানি চলছিল কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি জয়মাল্য বাগচীর ডিভিশন বেঞ্চে। এবার  থেকে কলকাতা হাইকোর্টের অন্য ডিভিশন বেঞ্চে চলবে এই সমস্ত  মামলার শুনানি । এদিন অর্থাৎ বৃহস্পতিবার  কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি জয়মাল্য বাগচী এই বিধ মামলা  গুলির শুনানির জন্য  এজলাসেও বসেন।হাইকোর্ট  সূত্রে প্রকাশ , বিচারপতি   আইনজীবীদের কাছ থেকে জানতে পারেন –  এদিনই এই  সমস্ত মামলা প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তব তাঁর এজলাস থেকে বিচারপতি তপোব্রত চক্রবর্তীর ডিভিশন বেঞ্চে পাঠিয়ে দিয়েছেন।

ঠিক কী কারণে এই মামলার বেঞ্চ বদল হল?  তা নিয়ে আইনজীবীদের মধ্যেও নানান মত রয়েছে ।মামলাকারীদের  আশঙ্কা,  বেঞ্চ বদলের ফলে বিচার প্রক্রিয়া দীর্ঘায়িত হতে পারে ।রাজ্যে চিটফান্ড নিয়ে হাইকোর্টে মামলা শুরুর পর কলকাতা হাইকোর্টের তত্‍কালীন প্রধান বিচারপতি মঞ্জুলা চেল্লুরের সঙ্গেই ডিভিশন বেঞ্চে বসতেন বিচারপতি জয়মাল্য বাগচী। এরপরে ২০১৫ সাল নাগাদ এই মামলা শোনার জন্য যে স্পেশাল বেঞ্চ গঠিত হয় সেখানেও তিনি ছিলেন। মামলাকারীদের তরফে আইনজীবীরা বলেন, -”  চিটফান্ডের মামলা হাইকোর্টে প্রথম দিন থেকে শুনছিলেন বিচারপতি জয়মাল্য বাগচী। এরফলে তাঁর এজলাস থেকে এখন এই মামলা সরালে নতুন করে অন্য বেঞ্চকে মামলা শুনে বিচার করতেও সময় লাগবে।”। উল্লেখ্য, কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে বছর পাঁচেক আগেই রোজভ্যালির টাকা ফেরানোর জন্য গঠিত হয়েছিল বিচারপতি দিলীপ শেঠ কমিটি। এই কমিটির জন্য আর খরচ বহন করতে পারবে না রাজ্য সরকার। এদিন রাজ্যের তরফে আইনজীবী হাইকোর্ট কে  জানান, -‘ যেহেতু হাইকোর্টেরই নির্দেশে বিচারপতি তালুকদার কমিটি গঠন হয়েছে। সেখানেই বহু অর্থলগ্নিকারী ভুঁইফোড় সংস্থার মামলা চলছে। তাই রাজ্য শুধু তালুকদার কমিটি চালানোর আর্থিক দায়ভার ও পরিকাঠামোর দায়িত্ব নেবে। এর ফলে অন্যান্য চিটফান্ড মামলার সঙ্গে রোজভ্যালির মামলাও তালুকদার কমিটিতে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে’।প্রায় ১৫ হাজার কোটির এই কেলেঙ্কারিতে শেঠ কমিটি কিছু জিনিসপত্র বিক্রি করে আমানতকারীদের টাকা ফেরানোর জন্য অর্থ জমা করছিল। কিন্বার নতুন কমিটিতে এই প্রক্রিয়া নতুন করে শুরু করতে আরও সময় লেগে যাবে।চিটফান্ড মামলায় সংশ্লিষ্ট বেঞ্চের বিচারপতির অজ্ঞাতসারে বেঞ্চ বদল ঘটনা নিয়ে আইনজীবীদের একাংশ সরব বলে জানা গেছে। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *