হাইকোর্ট সংবাদ

সরকার বিরোধী কর্মসূচিতে পুলিশের খাতায় নাম উঠলে মিলবেনা চাকরি!

মোল্লা জসিমউদ্দিন,

দেশের সর্বোচ্চ আদালত অর্থাৎ সুপ্রিম কোর্ট সম্প্রতি কলকাত পুলিশের দায়ের করা এক সোশাল মিডিয়ায় পোস্ট সংক্রান্ত মামলায় পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ কে ভৎসনা করেছিল। বাক স্বাধীনতা ভারতীয় সংবিধান প্রদত্ত মৌলিক অধিকার গুলির মধ্যে অন্যতম, তা সেই মামলায় নির্দেশদানে উল্লেখ ছিল।ঠিক এইরকম পরিস্থিতিতে বিহার সরকার এবং উত্তরখণ্ড সরকারের পুলিশের দুটি নির্দেশিকা ঘিরে গোটা দেশজুড়ে চরম চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে।গত ১ ফেব্রুয়ারি বিহার সরকারের রাজ্য পুলিশের ডিআইজি দ্বারা নির্দেশিকায় উল্লেখ রয়েছে যে,  – ‘ সরকার বিরোধী কোন কর্মসূচিতে পুলিশের খাতায় নাম ( এফআইআর)  নাম উঠলে, ওই অভিযুক্ত ব্যক্তি সরকারি চাকরিতে কোন সুযোগ পাবেনা।পাশাপাশি পাসপোর্ট, কোন সরকারি অনুদান, ব্যাংক ঋণ, আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স সহ ৯ টি সরকারি ক্ষেত্রে সে বঞ্চিত হবে’। আর এতেই বিহার সরকারের প্রতি সেখানকার বিরোধী দল সহ দেশের অধিকাংশ রাজনৈতিক দল এর প্রতিবাদ জানিয়েছে। এমনকি মানবাধিকার সংগঠন সহ আইনজীবী মহলেও এই নির্দেশিকা ঘিরে চরম চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে। বার কাউন্সিল অফ ওয়েস্ট বেঙ্গলের প্রাক্তন চেয়ারম্যান তথা বর্তমান সদস্য সেখ আনসার মন্ডল জানিয়েছেন – ‘শুধুমাত্র এফআইআর দায়ের করা হলেই সে সরকারি সমস্ত কিছু ক্ষেত্রে বঞ্চিত হবে, তা সংবিধান অনুযায়ী বেআইনী’। অপরদিকে উত্তরখণ্ড সরকার আবার এক ধাপ এগিয়ে শুধুমাত্র সোশ্যাল মিডিয়ায় সরকারি বিরোধী পোস্ট করলেই এই ধরনের সরকারি সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবে বলে নির্দেশ জারি করেছে রাজ্য পুলিশের ডিজেপির তরফে।এহেন পুলিশের নির্দেশ ঘিরে সুপ্রিম কোর্টে মামলা দাখিল হওয়াটা শুধু সময়ের অপেক্ষা বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। সম্প্রতি কলকাতার রাজাবাজারে করোনা সময়কালে অত্যাধিক ভীড় নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছিলেন দিল্লির এক বাঙালি মহিলা।সেই মামলায় কলকাতা হাইকোর্ট অভিযুক্ত মহিলা কে তদন্তকারী পুলিশ অফিসারের সামনে হাজিরার নির্দেশ দিলে পরে সুপ্রিম কোর্টে চরম ভৎসনার মুখে পড়ে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ বিশেষত কলকাতা পুলিশ। মূলত বাক স্বাধীনতা কে অগ্রাধিকার দেয় দেশের সর্বোচ্চ আদালত। এখন দেখার বিহার ও উত্তরখণ্ড সরকারের পুলিশের দুটি নির্দেশিকা ঘিরে শেষপর্যন্ত জল আদালত পর্যন্ত গড়ায় কিনা! 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *