ক্রীড়া সংস্কৃতি

বেহাল পাল্লারোডের হাসপাতাল

সেখ সামসুদ্দিন,

পূর্ব বর্ধমানের মেমারির পাল্লারোড প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের সীমানা পাঁচিল ভাঙ্গা দীর্ঘদিন ধরে, মূল গেটের সাইডের পাঁচিল বয়সের ভারে এবং পরবর্তীতে ঝড়ের দাপটে অনেকাংশে ভেঙ্গে পড়েছে , উত্তর পূর্ব দিকের কিয়দংশ মেরামতি হলেও পরবর্তীতে বাকি অংশ এখনও সীমানাবিহীন, দক্ষিণ ও দক্ষিণ পশ্চিম দিকে পাঁচিল আর বর্তমানে অবশিষ্ট নেই বললেই চলে। স্থানীয় ভুবনেশ্বর সরকার জানালেন “প্রায় ৩৫বছর আগে পথচলা এই স্বাস্থ্যকেন্দ্রের সীমানা ইঁটের গাঁথুনি ও কাঁটাতার দিয়ে ঘেরা ছিল। ছিল একাধিক উচ্চ বাতি স্তম্ভ কিন্তু পরবর্তীতে তা আর মেরামতি হয়নি”। রাতে হাসপাতালে প্রহরী থাকলেও পাঁচিল না থাকায় ও পর্যাপ্ত আলোর অভাবে নিরাপত্তা বিঘ্নিত হচ্ছে না না ভাবে, উচ্চবাতি স্তম্ভ গুলি বর্তমানে থাকলেও তার বাতি গুলি খারাপ। সেইগুলি ঠিক করে দিলে এবং সম্পূর্ণ অংশ না হলেও মূলগেট সংলগ্ন পাঁচিল মেরামতি করলে বর্তমানে মিটতে পারে নিরাপত্তা সমস্যা। রয়েছে পানীয় জলের সমস্যাও, গোটা হাসপাতাল ঘুরলেও মিলবে না কোনো পানীয় জলের সচল কলের দেখা। পার্শ্ববর্তী বাসিন্দা কামেশ্বর রানা জানান “পাঁচিল না থাকায় চুরি হয়ে গেছে কলের যন্ত্রাংশ, নিরাপত্তার অভাবে মেরামতি করলেও পুনরায় চুরি হচ্ছে কলের যন্ত্রাংশ থেকে নানা জিনিষ”। দরকার অবিলম্বে সমাধান, পাড়ায় পাড়ায় সমাধানে মিটুক এই সমস্যা দাবী স্থানীয়দের, এব্যাপারে আবেদন জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দা ও ছাত্র সত্যজিত ঘোষ। এখন দেখার কবে সমাধান হয় এই সমস্যার। যদিও পল্লীমঙ্গল সমিতির তরফে সম্পাদক সন্দীপন সরকার জানান “সম্পূর্ণ না হলেও ২৫০ফুট মতন পাঁচিল তারা করে দিতে চায় তাদের নিজস্ব সি.এস.আর তহবিল থেকে, সেব্যাপারে স্বাস্থ্য দপ্তরে আবেদন জানানো হয়েছে। মিলেছে প্রাথমিক সম্মতিও, দ্রুত কাজ শুরুর চেষ্টা চলছে”। মেমারির বি,এম,ও,এইচ ডাঃ হর্ষ ঘোষ পল্লীমঙ্গল সমিতির আবেদনের কথা স্বীকার করেছেন এবং বাকী পুরো বিষয়টি উচ্চস্তরে জানানোর আশ্বাস দিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *