প্রশাসন

আমরণ অনশন চলছে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের একাংশ কর্মীদের

সুরজ প্রসাদ,

এতদিন চলছিল রিলে অনশন। সমস্যার সমাধান না হওয়ায় এবার আমরণ অনশনে বসলেন বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ইউআইটির দুই জন কর্মী প্রীতম দে ও অমিয় ঘোষ। সোমবার থেকে আমরণ অনশনে বসে তাঁরা অস্বস্তিতে ফেলে দিয়েছেন ইউ আই টি কর্তৃপক্ষকে। সব মিলিয়ে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ইউনিভার্সিটি ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজির অচলাবস্থা আরো ঘোরালো হচ্ছে ।

পাঁচ দিন ধরে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ইউআইটি বিভাগের কর্মীরা কয়েকদফা দাবীতে অনশনে বসেছেন। এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ে।

এদিন ইউআইটির কর্মীরা বলেন, এক বছর অতিক্রান্ত হয়ে গেলেও তাঁদের নতুন পে কমিশনের সুযোগ এখনো দেওয়া হয়নি। এমনকি এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক্সিকিউটিভ কাউন্সিলের বৈঠকেও গোটা বিষয়টি নিয়ে ধোঁয়াশা রাখা হয়েছে।বারবার আবেদন জানানো হলেও কোনো কাজ না হওয়ায় তাঁরা বাধ্য হয়েই ইউ আই টি-র কর্মীরা এই আমরণ অনশনে নামতে বাধ্য হয়েছেন। যদিও তার জন্য ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনার যাতে কোনো সমস্যা না হয় সে ব্যাপারেও তাঁরা সতর্ক আছেন।

এরই পাশাপাশি এদিন কর্মীরা অভিযোগ করেছেন, বেশ কিছুদিন ধরেই ইউ আই টির অধ্যক্ষ এমন কিছু অর্থনৈতিক সুবিধা ভোগ করছেন তা অনৈতিক। তাঁরা অভিযোগ করেছেন এখনও পে কমিশনের বিষয় সম্পর্কে কোনোরকম সুস্পষ্টতা না এলেও অধ্যক্ষ নতুন পে কমিশনের স্কেল অনুযায়ী তাঁর প্রিন্সিপ্যাল এলাউন্স নিচ্ছেন। এমনকি তিনি ঘরভাড়া বাবদ টাকা নিলেও থাকছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসনে। কর্মীরা জানিয়েছেন, এব্যাপারে তাঁরা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সহ সমস্ত আধিকারিকদের কাছেই তাঁরা তথ্য প্রমাণ সহ অভিযোগ জানিয়েছেন। তার পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জানানো হয়েছে এব্যাপারে একটি এথিক্যাল কমিটি গঠন করা হয়েছে।

কিন্তু তাঁদের প্রশ্ন যাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি তাঁর স্বপদেই বহাল রয়েছেন। এমতবস্থায় এথিক্যাল কমিটির ফলাফল আদপে কতটা ফলপ্রসূ হবে তা নিয়েও তাঁরা চিন্তিত।

এদিকে, কর্মীদের এই আমরণ অনশনকে ঘিরে গোটা বিশ্ববিদ্যালয় জুড়েই চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। উল্লেখ্য, সম্প্রতি ইউআইটি পরিচালনায় বিশ্ববিদ্যালয় আর্থিক পরিচালনার দায়ভার ইউ আই টি-র হাতেই সঁপে দিচ্ছেন বলে খোদ ইউআইটির অধ্যক্ষ চিঠি দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে। তা নিয়ে বিস্তর জলঘোলাও শুরু হয়। তারপরেই ফের ইউআইটির অন্দরে কর্মী অসন্তোষ এবং আমরণ অনশনকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *