প্রশাসন

লাইব্রেরি খোলার আবেদন পল্লিমঙ্গল সমিতির

সেখ সামসুদ্দিন,

কোভিড মহামারি আটকানোর লক্ষ্যে ট্রেন বাস পরিষেবা বন্ধের সাথে সাথে বন্ধ ছিল সিনেমা হল, প্রেক্ষাগৃহ, লাইব্রেরী এবং সাংস্কৃতিক ও সামাজিক অনুষ্ঠানে অত্যাধিক লোক সমাগম সহ নানা জায়গা ও ক্ষেত্র। আনলক পর্যায়ে ধাপে ধাপে সিনেমা হল, প্রেক্ষাগৃহ খুলে গেছে, ট্রেন বাসও চলছে, নানান পূজা পার্বণের সামাজিক অনুষ্ঠান থেকে শুরু করে শীতকালীন নানা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও হচ্ছে। বাদ যাচ্ছে না প্রদর্শনীও। কিন্তু আনলকেও লক খোলেনি লাইব্ররীগুলির। স্কুল কলেজ বন্ধ থাকলেও অনলাইন ক্লাসে দুধের স্বাদ ঘোলে মিটছে ছাত্রদের কিন্তু লাইব্রেরী গুলি বন্ধ থাকায় বেজায় সমস্যায় পড়েছেন প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষার ছাত্রছাত্রীরা। দীর্ঘ ১০ মাস ধরে বন্ধ লাইব্রেরীগুলি। আনলক পর্যায়েও কোনো নির্দেশিকা না আসায় বন্ধ থাকছে বর্ধমান জেলা গ্রন্থাগার সহ, শহরতলীর আশ পাশের শিক্ষানিকেতন আশুতোষ গ্রন্থাগার কিংবা মেমারি বাগিলা বঙ্কিম পাঠাগার, জামালপুর পাঁচড়া পাঠাগার জানাচ্ছেন জেলা গ্রন্থাগারের আধিকারিকরা। স্থানীয় আশুতোষ গ্রন্থাগারের নিয়মিত পাঠক সন্দীপন সরকার জানালেন “এখন পাঠাগারগুলিতে মূলত প্রতিযোগিতা মূলক পরীক্ষার ছাত্রছাত্রীদের ভীড় থাকে ভালোই, এই পরীক্ষার বই গুলির দাম অত্যাধিক হওয়ায় এবং অনলাইনে তা পঠন পাঠনের সুযোগ না থাকায়, সর্বোপরী নিত্যনতুন নানা সাজেশন বই জেলা গ্রন্থাগার সহ অনেক সরকারী লাইব্রেরীতে উপলব্ধ হওয়ায় চাকুরীপ্রার্থীরা অনেকাংশে এই গ্রন্থাগারগুলির উপর নির্ভরশীল”, পাল্লারোড পল্লিমঙ্গল সমিতির গ্রন্থাগার, বড়শুল কিশোর গ্রন্থাগার , নগরকোনা পাঠাগার সহ বেশ কিছু বেসরকারী গ্রন্থাগারও বন্ধ রয়েছে সরকারী নিয়ম মেনে বিগত ১০ মাস ধরে, সেগুলি বন্ধ থাকায় নিদারুণ অসুবিধায় পড়েছে অনেক ছাত্রছাত্রীরা। এখন গ্রন্থাগার মানে শুধু গল্পের বই না গ্রন্থাগার এখন ছাত্রছাত্রীদের পঠনপাঠনের অনেকটা জুড়ে বিস্তৃত; তাই অবিলম্বে এই গ্রন্থাগারগুলি খুলুক এই আবেদন রাখছেন তারা। কোভিড স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১০০% না হলেও ৫০% উপস্থিতির অনুমোদন দেওয়া হোক এই দাবী তুলছেন সৌরভ খাঁ, সেখ আবসার আলি, সত্যজিৎ ঘোষের মতন নিয়মিত গ্রন্থাগারে আসা পাঠকরা। সম্প্রতি পল্লীমঙ্গল সমিতির তরফে রাজ্যের গ্রন্থাগার মন্ত্রীকে চিঠি লিখে এইব্যাপারে অবগত করা হয়েছে ও অনতিবিলম্বে লাইব্রেরীগুলি খোলার জন্য আবেদন জানানো হয়েছে বলে জানান সমিতির সভাপতি নিমাই মুখার্জী। এখন সরকারের এইব্যাপারে কবে টনক নড়ে সেটাই দেখার !

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *