প্রশাসন

গুসকরা পুর শহরে জঞ্জাল মুক্ত করার উদ্যোগ

ধনঞ্জয় বন্দ্যোপাধ্যায়

। পচনশীল ও অপচনশীল বর্জ্য পদার্থ বা জঞ্জাল রাখার জন্য বাড়ি বাড়ি দুই রকমের বালতি দেওয়া শুরু করলো গুসকরা পৌরসভা । বৃহস্পতিবার গুসকরায় আনুষ্ঠানিকভাবে এই সভায় সভায় বালতি দেওয়া শুরু হয় ।শুরু করেন গুসকরা পৌরসভা প্রশাসক প্রশাসক গীতা রানী ঘোষ । উপস্থিত ছিলেন অন্যতম প্রশাসক মন্ডলীর সদস্য কুশল মুখোপাধ্যায় এবং পৌরসভার অন্যান্য আধিকারিক বৃন্দ । অনুষ্ঠানে ডঃ বলরাম বন্দ্যোপাধ্যায় সহ বিশিষ্ট নাগরিক উপস্থিত ছিলেন। বহু মানুষ এই সভায় অংশগ্রহণ করেন । মিশন নির্মল বাংলাও রাজ্য নগর জীবিকা মিশনের সংযুক্তিকরণ কর্মসূচি আগেই ঘোষণা করা হয়েছিল। সেই অনুযায়ী বাড়ি বাড়ি বালতি দিয়ে দেওয়ার কর্মসূচি ঘোষণা করা হয় অনেক আগেই। সেইমতো কর্মীদের এবং নাগরিক সচেতনতা সভা হয় গত 2019 সালের 12 ই সেপ্টেম্বর বিদ্যাসাগর হলে প্রশিক্ষণ শিবির হয় ‌ চারা গাছ বিলি বৃক্ষ রোপন। প্লাস্টিকের ব্যবহার সম্পর্কে সচেতন করা। প্লাস্টিকের সুফল ও কুফল বিষয়ে নাগরিকদের জানানো বা সচেতন করার কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে ।শহরে নিষিদ্ধ প্লাস্টিক বিক্রি দোকানে দোকানে বিক্রি বন্ধ এবং ক্যারিব্যাগ বাজেয়াপ্ত করা, ব্যবহার নিষিদ্ধ করা এবং আটকানো প্রচার বিভিন্ন সময় করা হয়েছে ‌ নানারকম প্রশিক্ষণ সভা আগেই হয়েছে। এখন সেই সভার এবং সেই কর্মসূচির অংশ হিসাবে বাড়ি-বাড়ি দুই ধরনের বালতি দেওয়া কাজ শুরু হয়েছে। গুসকরা শহরের প্রতিটি পরিবারকে দুই ধরনের বালতিতে হবে ।একটি পচনশীল বজ্র ফেলার জন্য এবং দ্বিতীয়টি অপচনশীল বর্জ্য পদার্থ খেলার জন্য। স্যানিটারি ইন্সপেক্টর দেবাশীষ গোস্বামী জানান বাড়ি বাড়ি দুই ধরনের বালতিতে জঞ্জাল পরিবারের মানুষ রাখবেন পৌরসভার কর্মীরা সেখান থেকে এই দুই ধরনের বর্জ্য পদার্থ সংগ্রহ করে নিয়ে এসে যথাস্থানে রেখে দেবে বা নষ্ট করে দেবে পরিবারের পরিবারের লোকেরা যত্রতত্র রাস্তার ধারে ড্রেনে পুকুরে যাতে না ফেলে সেই জন্য পরিবেশ দূষণ রুখতে এই উদ্যোগ। শহর সুন্দর পরিচ্ছন্ন রাখা যায় এইজন্য এজন্য এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। দুই সপ্তাহের মধ্যে 16 টি ওয়ার্ড এ প্রত্যেকটি পরিবারে দুটি বালতি পৌরসভা কর্মীরা পৌঁছে দেবে বা পৌঁছে দেওয়ার কাজ শুরু করে দিয়েছে।পৌরকর্মীগনমী দুটি ই রিক্সার মাধ্যমে বাড়ি বাড়ি ঘুরে এই বর্জ্য পদার্থ সংগ্রহ করবে। বালতি গুলি পরিবারের মানুষ যাতে অন্য কাজে না লাগাতে পারে সেইজন্য বালতি গুলি নিচে ছিদ্র করা আছে। গুসকরা পৌরসভার প্রশাসনিক মন্ডলীর অন্যতম সদস্য কুশল মুখার্জি জানান মিশন নির্মল বাংলা রূপায়নে এই কর্মসূচির মাধ্যমে শহরকে জঞ্জালমুক্ত করার কাজ সহজ হবে বলে আশা করছি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *