বর্ধমান জেলা

আগামীকাল থেকে পূর্ব বর্ধমান জেলায় ৩১৫০০ জন কে করোনা প্রতিষেধক দেওয়া হবে

সুরজ প্রসাদ,

অবশেষে স্বস্তি করোনায়।আগামীকাল থেকে কোভিড ভ্যাক্সিন দেবার কাজ শুরু হচ্ছে বর্ধমানে।মোট ৭ টি কেন্দ্রে এই ভ্যাক্সিন দেওয়া হবে। প্রশাসনিক স্তরে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন। প্রশিক্ষণ সহ সব ব্যবস্থা হয়ে গেছে। আজ শেষ মুহূর্তের সব ব্যবস্থা খতিয়ে দেখতে বর্ধমান মেডিকেল কলেজে যান প্রশাসনের শীর্ষকর্তারা। সেখানে যান জেলাশাসক এনাউর রহমান ; ; জেলা পুলিশসুপার ভাস্কর মুখার্জি সহ স্বাস্থ্য দপ্তরের আধিকারিকরা। উপস্থিত ছিলেন বর্ধমান মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ সুহৃতা পাল।জেলা সভাধিপতি শম্পা ধারা জানান; জেলায় মোট ৭ টি কেন্দ্র করা হয়েছে। প্রতি পর্যায়ে ১০০ জনকে টিকা দেওয়া হবে। মোট ৩১৫০০ জনকে পূর্ব বর্ধমান জেলায় ভ্যাক্সিন দেওয়া হবে। যে সাতটি কেন্দ্রে ভ্যাক্সিন দেওয়া হবে সেগুলি হল; বর্ধমান মেডিকেল কলেজ; ঝুরঝুরেপুল স্বাস্থ্যকেন্দ্র; ভাতার; কালনা ; কাটোয়া;পূর্বস্থলী ও মেমারি।আগের ঘোষণামত ১৬ ই জানুয়ারি থেকেই পূর্ব বর্ধমান জেলায় কোভিড ভ্যাকসিন দেবার কাজ শুরু হবে। জানিয়েছেন মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক প্রণব রায়। তিনি জানান;স্বাস্থ্যদপ্তরের গাইডলাইন মেনেই একাজ হবে।প্রথমদিন জেলার ৭ টি কেন্দ্রে ভ্যাক্সিন দেওয়া হবে। বুধবার বর্ধমানে এসে পৌছায় কোভিড ভ্যাক্সিন।ইনসুলেটেড ভ্যানের কনভয় এই ভ্যাকসিন পৌঁছে দেয়। প্রতিদিন ১০০ জনকে এই ভ্যাক্সিন দেওয়া হবে। জেলায় মোট ৩১৫০০ জনকে প্রথম দফায় টিকাকরণ করা হবে। প্রথম পর্যায়ে স্বাস্থ্যকর্মী সহ কোভিড ওয়ারিয়রদের এই ভ্যাক্সিন দেওয়া হবে।নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় সংরক্ষিত রাখা হয়েছে ভ্যাকসিন। স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্র জানা গেছে, যিনি ভ্যাকসিন নিচ্ছেন আসার পর তাঁকে সেন্টার থেকে হাতে স্যানিটাইজার দেওয়া হবে। তারপর তাঁর নাম যাচাই করে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। ভ্যাকসিন দেওয়ার পর তাঁকে পাশের ওয়েটিং রুমে পাঠানো হবে। সেখানে তাঁকে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। যদি ভ্যাকসিন নেওয়ার পর আধঘন্টা কোন সমস্যা না হয়, তখন তিনি বেড়িয়ে যেতে পারবেন। ওয়েটিং রুমে নির্দিষ্ট দুরত্ব বজায় রাখা সহ কোভিড বিধি মেনে চলা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *