পুলিশ

বর্ধমানের ১২ নং ওয়ার্ডে বিজেপি তৃণমূল মারপিট, উত্তেজনা

সুরজ প্রসাদ ,

ফের অশান্তি ছড়ালো বর্ধমানে।এবার বর্ধমান পৌরসভার ১২ নম্বর ওয়ার্ডের বটতলায় শনিবার রাতে তৃণমূল বিজেপি সংঘর্ষে উত্তপ্ত হল।বিবদমান দুই দলের সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন কর্মী জখম হয়েছে।
শাসক বিরোধী দু’পক্ষই একে অপরের বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ করে।বিজেপির জেলা যুব মোর্চার সভাপতি শুভম নিয়োগীর অভিযোগ বটতলা এলাকায় বিজেপির দলীয় পতাকা খুলে দেয় তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী সমর্থকরা।প্রতিবাদ করলে তারা বিজেপি কর্মীদের উপর হামলা চালায়। তাদের মারধর করে।দু’জন বিজেপি কর্মী জখম হয় তৃণমূলের হামলায়।
পাল্টা বিজেপির বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রেসের। জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক খোকন দাস বলেন রাতের অন্ধকারে নেশা করছে। তারপর তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যালয়ে হামলা করছে।রাতে মদ খেয়ে পার্টি অফিসে ভাঙচুর করেছে।পুলিশ এসেছে। যদি পুলিশ প্রশাসন কোন ব্যবস্থা না নেয়।তাহলে তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী সমর্থকরাও বুঝিয়ে দেবে।তারা হাত গুটিয়ে বসে থাকবে না।১২ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কংগ্রেস নেতা অনন্ত মণ্ডল বলেন ক্যানেল পাড়ে বিজেপি কর্মীদের মদ খাওয়ার ডেরা আছে।রাতে ওখানে মদ খেয়ে পার্টি অফিসে ভাঙচুর করেছে।তারপর পালিয়ে গেছে। সামনাসামনি লড়াই করার ক্ষমতা নাই বিজেপির। একই দাবী করেন তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা যুব সভাপতি রাসবিহারী হালদারের। তিনি বলেন যদি পুলিশ প্রশাসন কোন ব্যবস্থা না নেয়।তাহলে তারাও পাল্টা আঘাত করবে।
বিজেপির যুব মোর্চার সভাপতি শুভম নিয়োগীর হুঁশিয়ারি পুলিশ নিরপেক্ষ থাকুক। তারা তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী সমর্থকদের দেখে নেবে।তার আরো অভিযোগ পুলিশ শাসকদলের নেতাদের কথায় চলছে।
তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সাধারণ সম্পাদক খোকন দাস বলেন শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য তারা কিছু করছে না। তবে পুলিশ প্রশাসন সঠিক ভূমিকা পালন না করলে তারা বুঝিয়ে দেবে। তৃণমূল কেবল চুপ করে বসে থাকবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *