রাজনীতি

বর্ধমান শহরে তৃণমূল ও বিজেপির কর্মসূচি ঘিরে চাঞ্চল্য

সুরজ প্রসাদ ,

একই চত্বরে দুয়ারে সরকারের সরকারি কর্মসূচি আবার তার পাশেই বিজপির মহিলা মোর্চার ডাকে রাজ্যজুড়ে মহিলাদের অসুরক্ষার প্রতিবাদ।এই নিয়ে চাঞ্চল্য ছড়াল বর্ধমানের টাউনহলে। বিজেপি জানিয়েছে এর জন্য অনুমতি নেওয়া আছে তাদের অন্যদিকে তৃণমূল কংগ্রেসের দাবি বিনা অনুমতিতে গোলমাল পাকাতে এই কাজ করছে বিজেপি। সদর মহকুমাশাসক জানিয়েছেন ; কোনো অনুমতি নেই।ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বর্ধমান টাউনহল গত কয়েকবছর ধরেই রাজনৈতিক ঘটনার কেন্দ্র হয়ে দাঁড়িয়েছে।কোভিড পরিস্থিতি আসার পর আজ আবার উত্তাপ ছড়াল টাউনহলে। এদিন নির্ধারিত সময়ে বর্ধমান শহরের ৩৪ নম্বর ওয়ার্ডের ‘ দুয়ারে সরকার’ কর্মসূচি শুরু হয়। নানা কাউন্টারে লাইন দেন উপভোক্তারা। স্বাস্থ্যসাথী সহ নানা প্রকল্পের কাজ নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন সরকারি আধিকারিক ও কর্মীরা।ইতিমধ্যে টাউনহলের মাঠে রীতিমতো মঞ্চ বেঁধে শুরু হয় বিজেপি মহিলা মোর্চার কর্মসূচি। রাজ্যে মহিলাদের অসুরক্ষার প্রতিবাদে এই কর্মসূচিতে যোগ দেন মহিলা মোর্চার সর্বভারতীয় সভানেত্রী বনিতা শ্রীনিবাসন ও রাজ্য সভানেত্রী অগ্নিমিত্রা পল। সরকারি কর্মসূচির পাশে এই রাজনৈতিক কর্মসূচি ঘিরে ঘনিয়ে ওঠে বিতর্ক। তৃণমুল কংগ্রেসের জেলা মুখপাত্র প্রসেনজিৎ দাস অভিযোগ করেন যেখানে একটি সরকারি পূর্বঘোষিত কর্মসূচি চলছে; পরিষেবা পেতে মানুষ আসছেন।সেখানে বিশৃঙ্খলা তৈরির জন্য বিজেপি এই কাজ করেছে। এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন বিজেপির জেলা নেতা শ্যামল রায়। তার দাবি; পারমিশন ছাড়া বে আইনি কাজ বিজেপি করেনা। তৃণমূল ভুল কথা বলছে।প্রশাসন ওদের হাতে তামাক খেয়ে কথা বলছে।শাসকদলের দালালি করছে। আসন্ন পরিবর্তন ওরা টের পাচ্ছেনা। অন্যদিকে এই টাউনহল চত্বর কিন্তু বর্ধমান পুরসভার অধীনে। সেখানে দু বছর বোর্ড নেই। প্রশাসকের দায়িতে আছেন প্রশাসক।।প্রশাসক হিসেবে আছেন সদর মহকুমাশাসক ( উত্তর) দীপ্তার্ক বসু। তিনি জানিয়েছেন ; এখানে আজ ৩৪ নম্বর ওয়ার্ডের দুয়ারে সরকার কর্মসূচি চলছে। ঠিকভাবেই চলছে। পাশে একটি রাজনৈতিক কর্মসূচি কীভাবে চলছে? তিনি জানান; তিনি দেখেছেন চলছে। এই কর্মসূচির কোনো অনুমতি নেই। পুরসভার অনুমতি নেই।পুলিশের অনুমতি নেই।মাইকের জন্য ও অনুমতি নেই? পারমিশন ছাড়াই হচ্ছে। আইনত যা ব্যবস্থা নেবার নেওয়া হবে।এখন প্রশ্ন হলো; পুরসভার অধীনে থাকা টাউনহলে সরকারি কর্মসূচির পাশে বিনা অনুমতিতে মাইক বাজিয়ে জমায়েত করে রাজ্যস্তরের নেত্রীরা কর্মসূচি করে গেলেন। প্রস্তুতি চলল।মঞ্চ থাকল।মাইকও থাকল।কীভাবে সম্ভব হলো সেটা?
এই বিষয়ে জেলা পরিষদের সহসভাধিপতি দেবু টুডু তথা রাজ্য তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র দেবু টুডু বলেন গোটা বিষয়টি জানানো হয়েছে মহকুমাশাসককে।আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 157 12,89,834

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *