রাজনীতি

অমিত শাহের পথ ধরে ‘জনবল’ দেখাতে বোলপুর আসছেন মমতা

খায়রুল আনাম (বিপাশা আর্ট প্রেস ),

 বোলপুরে রোড শো করবেন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা
           
আসন্ন রাজ্য বিধানসভা ভোটের দামামা রাজনৈতিক দলগুলি ইতিমধ্যেই বাজিয়ে দিয়েছে।  ২০ ডিসেম্বর বীরভূমের বোলপুর শহরের ডাকবাংলো মাঠ থেকে চৌ-রাস্তা পর্যন্ত রোড-শো করে তাকে উচ্চ মাত্রায় পৌঁছে দিয়ে গিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা অমিত শাহ। এই রোড-শোতে বিপুল সংখ্যক মানুষের উপস্থিতিকে ঘিরে ইতিমধ্যেই রাজনৈতিকস্তরে নানান জল্পনা শুরু হয়ে গিয়েছে। বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের নিজের শহর বোলপুরে বিজেপি নেতা অমিত শাহের রোড-শোকে  ঘিরে নানাভাবে রাজনৈতিক অঙ্ক কষাও চলছে। অমিত শাহ যখন শহরে রোড- শো করছেন তখন অনুব্রত মণ্ডলও শহরের মধ্যে রাজ্য সরকারের ‘দুয়ারে সরকার’ কর্মসূচী নিয়ে  প্রচার চালিয়ে গিয়েছেন। তিনি দাবিও করেন যে, অমিত শাহর রোড-শোতে অন্য জেলা ও অন্য রাজ্য থেকে লোক এনে ভীড় বাড়ানো হয়েছিলো। তিনি জানিয়েও ছিলেন যে,  দিদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললে তিনি শুধুমাত্র বীরভূম জেলা থেকেই  লোক  নিয়ে  আরও বড় রোড-শো করতে পারেন। তাঁর সেই বক্তব্যেরই প্রতিফলন এবার দেখতে চলেছে বোলপুর শহর। যাতে দেখা যাবে  স্বয়ং তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে।  এমনটাই জানালেন  অনুব্রত মণ্ডল।    জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল ২১ ডিসেম্বর বোলপুরে দলের জেলা কার্যালয়ে  সাংবাদিক সম্মেলন করে জানান, ২৭ ডিসেম্বর বোলপুরে  মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়  একটি রোড-শো করবেন বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।   মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়  ২৮ ডিসেম্বর বোলপুরে আসছেন জেলা প্রশাসনিক বৈঠকে যোগ দিতে। অন্যান্য বারের মতো এবারও ওই বৈঠক হবে বোলপুরের গীতাঞ্জলি সংস্কৃতি অঙ্গনে। তাই মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, পরদিন ২৯ ডিসেম্বর তিনি বোলপুরে রোড-শো করবেন। বোলপুর ডাকবাংলো মাঠ থেকে ২৯ ডিসেম্বর বেলা একটার সময়  চৌ-রাস্তা পর্যন্ত  ওই  রোড-শো করবেন মমতা বন্দ্যাপাধ্যায়। অমিত শাহের রোড-শোতে বিজেপি  এ জেলা ছাড়াও পুরুলিয়া,  আসানসোল, রানিগঞ্জ,  বাঁকুড়া, মুর্শিদাবাদ ও ঝাড়খণ্ড রাজ্য থেকে লোক এনেছিলো।  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রোড-শোতে  শুধুমাত্র এ  জেলা থেকেই   আড়াই লক্ষ মানুষ যোগ দিবেন। মহিলা, বাউল শিল্পী, মতুয়া সম্প্রদায়ের লোকজন-সহ অন্যান্যদের নিয়ে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ডাকবাংলো মাঠ থেকে চৌ-রাস্তা পর্যন্ত আসবেন।  অমিত শাহ তাঁর শান্তিনিকেতন সফরের সময় এখানকার বিশ্বভারতী কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের রাস্তাটিকে ‘বিবেকানন্দ সরণি’ হিসেবে নামকরণ করে তার উদ্ধোধন করার সমালোচনা করে অনুব্রত মণ্ডল বলেন, এখানে কী কারও নামে রাস্তার নামকরণ হতে পারে ?  উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী একটা পাগল বলে এমনটা করিয়েছেন। রামকৃষ্ণ মিশনের কোনও রাস্তার নাম কী রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের  নামে হবে ?  উনি বিশ্বভারতীর উপাচার্য হয়েও এখানে চরম নোংরামি করছেন। রবীন্দ্রনাথকে কলুষিত করছেন। যদি প্রয়োজন মনে করি,  তাহলে ঝাণ্ডা তুলে বিশ্বভারতীতে রাজনীতি শুরু  করে দিতে পারি। কিন্তু আমরা সেটা চাইছি না ।  আগামী বিধানসভা ভোটে  বিজেপি এরাজ্যে ক্ষমতা দখলের যে কথা বলছে, সে বিষয়ে অনুব্রত মণ্ডলের স্পষ্ট মত, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হতে গেলে  ন্যূনতম ১৪৮টি আসন পেতে হবে। বিজেপি তো সেই সংখ্যক আসনই পাবে না। তাই তাদের মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার প্রশ্ন আসছে কোথা থেকে ?  এই প্রশ্নই জোরের সাথে তুললেন অনুব্রত মণ্ডল ।।  ছবি : সাংবাদিক সম্মেলনে অনুব্রত মণ্ডল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *