প্রশাসন

‘দূঃখের নদী’তে কৃষক সেতুর বিপদ ক্রমশ বাড়ছে

ক্যান্সার আক্রান্ত কৃষক সেতু

                 বর্ধমান শহরের অন্যতম ‘লাইফ লাইন’ কৃষক সেতু.বর্ধমান শহরের সঙ্গে দক্ষিণ দামোদরের সংযোগকারী এই  সেতু আরামবাগ, মেদিনীপুর, বাঁকুড়া পৌঁছনোর ‘লাইফ লাইন’। এই  সেতু  বর্ধমান ও আরামবাগকে সেহরাবাজারের সাথে সংযুক্ত করে। এটি খন্ডঘোষ, পাত্রসায়ার, সোনামুখী,  বিষ্ণুপুরকেও যুক্ত করছে। এই ব্রিজের অপর নাম  "তাপ্পি ব্রিজ " বললেও ভুল কিছু হবে না।

কিন্তু দীর্ঘদিন যাবৎ এই সেতু ক্যান্সার আক্রান্ত। ক্যান্সার আক্রান্ত বলে যেন ব্রিজের সমস্ত অঙ্গ গুলো যেন কিছু দিন অন্তর অন্তর ব্যাধিগ্রস্থ হযে পরছে। সাথে সাথে চলছে chemotherapy , ray ইত্যাদি। দক্ষিণ দামোদর বাসি জানে না এই তাপ্পি ব্রিজ কবে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়বে একদিন।
কিছু দিন আগে ব্রিজের ফাঁকা অংশ দিয়ে সরাসরি চোখে পড়তো নীচ দিয়ে বয়ে চলা দামোদরের জল। জানি না দূঃখের নদের উপর নির্মিত এই ব্রিজে বলেই কি আজ এই করুন অবস্থা।

 আজ ব্রিজের এই করুন অবস্থা র কারণে দক্ষিণ দামোদার বাসি চিন্তিত.....কবে হয়তো এই ‘লাইফ লাইন’ বিচ্ছিন্ন হয়ে মূল  শহরের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করবেI

জেলা পূর্ত দপ্তরের তত্বাবধানে বর্ধমানের দক্ষিণ দামোদর এলাকার বাসিন্দাদের উদ্দেশে 1975 সালে তৈরি করা হয়েছিল এই সেতু। দীর্ঘ 44 বছর পরে বর্তমানে সেতুটির অবস্থা বেশ খারাপ।
সদরঘাটে দামোদর নদীর উপরে এই সেতু ‘কৃষক সেতু’ নামে পরিচিত I শহর ও দক্ষিণ দামোদর বাসী সকল বিপদের সম্মুখীন হয়েও পারাপার করতে হয়েছে নিত্ত যাত্রীদের, , ছাত্র- ছাত্রীদের, শ্রমিকদের, ব্যাবসায়ীদের মূল শহরের অভ্যন্তরে তাদের নিত্য প্রয়োজনীয় কাজে I ফলে তাদের বহু সময়ের অপচয় হচ্ছে দিনের পর দিন I বাসের মধ্যে বসে অতিবাহিত হয়েছে ঘন্টার পর ঘন্টা । তারা জানে না কবে এই যন্ত্রনাথেকে মুক্তি পাবে …..??????

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *