ক্রীড়া সংস্কৃতি

রুপনারায়নপুরে ভবঘুরেদের আহারের আয়োজন

ভবঘুরে আশ্রমে খাবার খাওয়ালেন রূপনারায়নপুর এর সমাজসেবী পরিতোষ তেওয়ারী

কাজল মিত্র

:- করনা ভাইরাসের প্রকোপ থেকে বাঁচতে রাজ্য সরকার ও ভারত সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী শুরু হয়েছে লকডাউন।আর সেদিন থেকেই সালানপুর ব্লকের হিন্দুস্তান ক্যাবেলসের এক পরিত্যাক্ত আবাসনে নতুন ভাবে গড়ে উঠেছে এক ভবঘুরে আশ্রম। যেখানে হিন্দুস্তান কেবলস পূনর্বাসন কমিটি তৎপরতায় ও সালানপুর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস এর সহায়তায় সালানপুর ব্লকের আশেপাশের অভুক্ত মানুষদের এনে রাখা হয়। লকডাউন এর পূর্ব থেকেই এখানে রয়েছে কিছু বৃদ্ধ-বৃদ্ধা যাদের না আছে মাথাগোঁজার ঠাঁই না আছে তাদের খেতে দেবার কোন আপনজন । রাস্তার এদিক-ওদিক একমুঠো খাবারের খোঁজে ঘুরে বেড়াতো ওই সব ভবঘুরে লোকগুলি। তাদেরকে এনে এই আশ্রমে রাখার ব্যবস্থা করেন হিন্দুস্তান কেবলস পুনর্বাসন কমিটির সম্পাদক সুভাষ মহজন। সেখানে এখন মোট পুরুষ ও মহিলা মিলিয়ে 10 জন ভবঘুরে রয়েছে যাদের খাওয়া-দাওয়া থাকা থেকে সমগ্র দায় দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছেন সালানপুর ব্লক তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক ভোলা সিং মহাশয় ও হিন্দুস্তান কেবলস পুনর্বাসন কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুভাষ মহজন।
তাছাড়াও লকডাউনের সময় থেকেই এই ভবঘুরে আশ্রমে থাকা মানুদের পাশে থেকে তাদের দুবেলা খাবার খাওয়ানোর জন্য এসে পৌঁছান রূপনারায়নপুর এর বাসিন্দা পরিতোষ তেওয়ারি। প্রায়শই এই ভবঘুরে আশ্রম 10 জন মানুষকে খাবার খাওয়াতে আসেন তিনি। শনিবার সকালে পরিতোষ তেওয়ারী ওই আশ্রমের থাকা ভবঘুরে ও রূপনারায়নপুর আইটিআই করেন্টাইনে থাকা মানুষদের চাহিদা মত তাদের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করেন। তাদের এদিনের খাবার মেনু ছিল খিচুড়ি তরকারি আলু চিপস ও মিষ্টি । তিনি শনিবার দুপুরে তাদেরকে খাওয়া-দাওয়া করান। তিনি বলেন সমাজে বহু মানুষ রয়েছে যারা দু’বেলা পেট ভরে খেতে পায়না তাদের পাশে আমি সর্বদাই রয়েছি। তাছাড়া সালানপুর ব্লক তৃণমূল সাধারণ সম্পাদক ও সুভাষ মহাজন’ যেভাবে এই আশ্রমে মানুষদের পাশে রয়েছে তাদেরকে তিনি অশেষ ধন্যবাদ জানান ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *