হাইকোর্ট সংবাদ

সাতদিন পর নির্বাচনী দিনক্ষণ না জানালে আদালতই ‘প্রশাসক’ বসাবে কলকাতা পুরসভায়

সাতদিন পর নির্বাচনী দিনক্ষণ না জানালে আদালতই ‘প্রশাসক’ বসাবে কলকাতা পুরসভায়

মোল্লা জসিমউদ্দিন (টিপু ) ,


দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যখন নির্বাচন ঘটেছে করোনা আবহের মধ্যেই, তখন কলকাতা পুরসভায় কেন নির্বাচন নয়? আর কোন অজুহাত নয়, রাজ্য নির্বাচন কমিশন কে সাতদিনের সময়সীমা বেঁধে দিল দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট। সোমবার মামলাকারী শরদ সিংহের আপিল মামলায় এহেন নির্দেশিকা সুপ্রিম কোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের। রাজ্য নির্বাচন কমিশন সরকারের সাথে ভোট নিয়ে আলোচনার জন্য সাতদিন সময় চেয়েছে সুপ্রিম কোর্টের কাছে। সুপ্রিম কোর্ট এহেন আবেদন গ্রহণ করলেও হুশিয়ারী দেওয়া হয়েছে – ‘যদি সাতদিন পর কলকাতা পুরসভার ভোট গ্রহণের দিনক্ষণ না জানানো হয়, তাহলে আদালতই প্রশাসক বসিয়ে দেব পুরসভায়’।  এহেন নজিরবিহীন নির্দেশে বাংলার রাজনীতিতে চাঞ্চল্য এনে দিয়েছে। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে কলকাতা পুরসভার নির্বাচন ঘটলে তা নবান্ন দখলে প্রাথমিক আভাস মিলবে শাসক বনাম বিরোধী দলের মধ্যে। এদিন সুপ্রিম কোর্টের ডিভিশন বেঞ্চে আপিল মামলায় শুনানিতে করোনা অতিমারির মত পরিস্থিতির কথা তোলা হয়। সেখানে সুপ্রিম কোর্ট জানায় – ‘এহেন পরিস্থিতিতে বিহার, আসাম, হায়দ্রাবাদে ভোট করিয়েছে নির্বাচন কমিশন। সেখানে কলকাতা পুরসভার ভোট গ্রহণ কেন হবেনা’?  সাতদিনের মধ্যেই পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য নির্বাচন কমিশন কে কলকাতা পুরসভার ভোটগ্রহণের দিনক্ষণ প্রকাশের নির্দেশ দেয়। তখনি রাজ্য নির্বাচন কমিশন সাতদিন সময় চেয়ে নেয় রাজ্য সরকারের সাথে ভোটের বিষয়ে আলোচনার জন্য। সুপ্রিম কোর্টে এই মামলার পরবর্তী শুনানি রয়েছে আগামী ১৭ ডিসেম্বর ।  এর মধ্যে রাজ্য নির্বাচন কমিশন কলকাতা পুরসভার ভোটের সময়সূচি না প্রকাশ করলে আদালতের পক্ষে কলকাতা পুরসভার পরিচালনার ক্ষেত্রে প্রশাসক বসিয়ে দেওয়ার হুশিয়ারী দেওয়া হয় সুপ্রিম কোর্টের তরফে।উল্লেখ্য, গত ৮ জুন কলকাতা পুরসভার জনপ্রতিনিধিদের মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার আগেই প্রশাসক মন্ডলী বসায় রাজ্য পুর নগর উন্নয়ন দপ্তর। বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এহেন পুর প্রশাসক মন্ডলী নিয়োগ কে চ্যালেঞ্জ করে কলকাতা হাইকোর্টে বেশ কয়েকটি মামলা দাখিল হয়। কলকাতা হাইকোর্টের সিঙ্গেল বেঞ্চ থেকে ডিভিশন বেঞ্চ। এমনকি মাঝখানে সুপ্রিম কোর্ট অবধি মামলা গড়ায়। কলকাতা হাইকোর্টে এক মামলায়  রাজ্য সরকারের পুর প্রশাসক মন্ডলী নিয়োগ কে বৈধতা দেওয়া হয়। এই রায় কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে শরদ সিং পুনরায় সুপ্রিম কোর্টের দারস্থ হন। সেই মামলার আজ ছিল শুনানি। সেখানে সাতদিনের সময়সীমা বেঁধে কলকাতা পুরসভার ভোট গ্রহণ নিয়ে দিনক্ষণ ঘোষণার নির্দেশিকা দেওয়া হয়েছে। নাহলে স্বতঃস্ফূর্তভাবে আদালতই কলকাতা পুরসভার প্রশাসক বসিয়ে দেবে বলে হুশিয়ারি দেওয়া হয়েছে সুপ্রিম কোর্টের তরফে।বিধানসভার ভোটের আগে নবান্ন দখলের প্রাথমিক লড়াই হিসাবে কলকাতা পুরসভার ভোট খুবই গুরুত্বপূর্ণ শাসক ও বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির মধ্যে। এইরূপ মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। এই মামলার পরবর্তী শুনানি রয়েছে আগামী ১৭ ডিসেম্বর 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *