ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় আমফান

প্রশাসন

জুলফিকার আলি

বিপুল কলেবরে ধেয়ে আসছে সাইক্লোন আমফান। বুধবার দুপুর নাগাদ এই ঝড় আছড়ে পড়বে গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের স্থলভূমিতে। সেই সময় ঝড়ের গতিবেগ থাকবে ঘন্টায় প্রায় ১৬০ থেকে ১৭০ কিমি। যা ভয়াবহ আইলা ঝড়ের থেকেও ভয়াবহ। এই ঝড়ে যে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে তা মানছেন বিশেষজ্ঞরাও। তাই যে সমস্ত এলাকায় এই সাইক্লোন আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা থাকছে সেই এলাকাগুলিতে হাই এলার্ট জারি করেছে প্রশাসন। সেই সঙ্গে পরিস্থিতির মোকাবিলায় অনেকটা আগে থেকেই তৎপর হয়েছেন প্রশাসনিক আধিকারীকরা। সূত্রের খবর, আমফান ঝড়টি আগামী বুধবার দুপুর থেকে বিকেল নাগাদ গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের স্থলভূমিতে আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। দিঘা ও বাংলাদেশের মাঝামাঝি জায়গায় এই ঝড় আঘাত হানবে। যার জেরে এই রাজ্যে জারি হয়েছে অরেঞ্জ সতর্কতা। পরিস্থিতির মোকাবিলায় ইতিমধ্যে রাজ্যের অন্যান্য জায়গার পাশাপাশি দিঘায় নামানো হয়েছে জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী। রবিবার রাতেই এই বাহিনী দিঘায় এসে শুরু করে দিয়েছে সাইক্লোন মোকাবিলার প্রস্তুতি এনডিআরএফ বাহিনীর তরফে জানানো হয়েছে, তাঁরা যে কোনও রকম দুর্যোগের মোকাবিলায় সম্পূর্ণ তৈরি রয়েছেন। ঝড়ে কোনও রকম ক্ষয়ক্ষতি হলে দ্রুত পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে তৎপর থাকবেন এনডিআরএফ জওয়ানরা। এনডিআরএফ-এর তরফে জনগনের উদ্দেশ্যে জানানো, এমন সাইক্লোন এলে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশংকা থাকে। তাই ওই সময় সবাইকে বাড়ির মধ্যে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে অথবা প্রয়োজনে সরকারী ফ্লাড সেন্টারে চলে যেতে পারেন। ঝড়ে উড়ে যেতে পারে এমন বিপজ্জনক জিনিস বাড়ির বাইরে ফেলে রাখতে নিষেধ করা হয়েছে।
ঘূর্ণিঝড়ের আগে কি কি করবেন, জেনে নিন –
১) রেডিও, টিভি ও সংবাদপত্রের আবহাওয়ার খবরগুলির দিকে নজর রাখুন।
২) মোবাইল ফোন চার্জ দিয়ে রাখুন।
৩) নিজেদের অত্যাবশ্যকীয় সামগ্রী, খাদ্য, ওষুধ, জল, পোশাক এগুলিকে প্রস্তুত রাখুন।
৪) আপনার সমস্ত জরুরি কাগজপত্র, মূল্যবান সামগ্রীকে জল থেকে বাঁচিয়ে রাখুন।
৫) মৎস্যজীবীরা এই সময় সমুদ্রে যাবেন না।
৬) মৎস্যজীবীরা নিজেদের নৌকা নিরাপদ স্থানে বেঁধে রাখুন।
৭) বাড়িতে কোনো ধারালো বস্তু বা অস্ত্র জাতীয় কিছু খোলা অবস্থায় রাখবেন না।
৮) আর সর্বোপরি, গুজবে কান দেবেন না। আতঙ্কিত হবেন না।

ঘূর্ণিঝড়ের সময় কি কি করবেন, জেনে নিন –

১) দরজা, জানলা সব বন্ধ রাখুন।
২) বৈদ্যুতিক লাইন, গ্যাস সিলিন্ডারের মেইন সুইচ বন্ধ করে রাখুন।
৩) কাঁচা বাড়ি, ভাঙাচোড়া বাড়িতে এই সময় থাকবেন না।
৪) প্রয়োজনে নিকটবর্তী স্থানে আশ্রয় I
সবাই সুস্থ থাকুন ভালো থাকুন I

Leave a Reply

Your email address will not be published.