খেজুড়িতে পরিযায়ী শ্রমিকরা রয়েছে অবহেলায়

প্রশাসন

জুলফিকার আলি

খেজুরীর টিকাশী অঞ্চলের কুলবাড়ি,প্রিয়ানগর গ্রামের ৬৩ জন শ্রমিক তামিলনাড়ু র চেন্নাই থেকে ২টি বাস নিয়ে গত১৫ ই মে সন্ধ্যায় এলাকায় ফিরে আসে। খাবার না পেয়ে দীর্ঘ পথ খুবই কস্ট করে হেঁড়িয়াতে আসার পর এখানে সি,পি, আই (এম) র কর্মী গন জল,টিফিনের ব্যবস্থ্যা করে দেয়। গ্রামে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে থাকার কথা,এলাকার তৃনমূলী পঞ্চায়েত বাধা দেয়।ব্লক প্রসাশন কোন সহযোগিতা করলনা।তাই এলাকার পার্টি নেতৃত্ব ও গ্রামবাসিরা মিলে গ্রাম থেকে কিছুটা দূরে ফাঁকা মাঠে এবং এইচ,টি,সি,ক্যানেল পাড়ে,এই দুই জায়গায় দুটি অস্থায়ী ক্যাম্প করে শ্রমিক ভাইয়েরা কস্ট করে আছে।খাবার জন্য চাল,ডাল,সবজি সমূহ হেঁড়িয়া এরিয়া কমিটি থেকে ও গ্রামবাসীদের পক্ষ দেওয়া হয়েছে।কিন্তু সমস্যা হচ্ছে গতকাল কামারদা স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে বলা হল সবাই কে স্বাস্থ্য পরিক্ষার জন্য হাসপাতালে এবং চন্ডীপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে যেতে হবে।ক্যাম্প থেকে কামারদা স্বাস্থ্য কেন্দ্র পায় ১০ কিলো মিটার এবং চন্ডীপুর পুর স্বাস্থ্য কেন্দ্র ১৫ কিলো মিটার। শ্রমিকরা কি করে যাবে? যাতে স্বাস্থ্য কর্মীরা ক্যাম্প গুলিতে এসে পরীক্ষা করেন তার আবেদন করলে ডাক্তার ও বি,ডি,ও,খেজুরী ১দুজনেই বলে দেন স্বাস্থ্য কর্মীদের নিয়ে যাওয়ার মতো গাড়ি নেই।তাই আসতে হবে।তখন পার্টি নেতৃত্ব গাড়ি ঠিক করলে জানানো হয়, ডাক্তার জানান আজ হবে না, পরে জানানো হবে।এই ভাবে শ্রমিক ভাইদের প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন সহযোগিতা পাচ্ছে না।এই শ্রমিক ভায়েরা বাড়ি ফোরার জন্য বহু কষ্ট করেছেন।রোজগারের টাকা লক ডাউনে বসে খেতে খেতে শেষ।যে যার বাড়ি থেকে ধান বিক্রির পাঠানো টাকায় মাথা পিছু আট হাজার করে টাকা দিয়ে দুটি বাসে তিন লক্ষ আশি হাজার টাকা দিয়ে কোন ক্রমে বাড়ি ফিরেছে।শুধু পরিবারের মায়ায়।এ ক্ষেত্রে প্রশাসন বা সরকারের কোন সাহায্য সহযোগিতা এই অসহায় শ্রমিক ভাই রা পায় নি।গ্রামের মানুষ ক্ষোভে ফুঁসছে।

তৃণমূল এর তরফে সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.