একশো দিন প্রকল্পে রাজনৈতিক দলাদলির অভিযোগ শালবনীতে

রাজনীতি

এক হাজারেরও বেশি পরিবার (জবকার্ড হোল্ডার ) চার হাজারের বেশি শ্রমিক বিগত দু’বছর বঞ্চিত শালবনিতে

শালবনী ব্লকের ১০ টি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে ৮ টি গ্রাম পঞ্চায়েত তৃণমূল কংগ্রেস দ্বারা পরিচালিত এবং দুটি গ্রাম পঞ্চায়েত লালগেড়িয়া এবং ভীমপুর বিজেপির দ্বারা পরিচালিত , বিগত 2018 সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর 2018-19 সালের শেষ তিন মাস এবং উনিশ- কুড়ি সালের সম্পূর্ণ সারাবছর লালগেড়িয়া এবং ভীমপুর অঞ্চলের প্রায় 1000 জব কার্ড হোল্ডার পরিবারের চার হাজারেরও বেশি শ্রমিকদের রাজনৈতিক অভিসন্ধি চরিতার্থ করার উদ্দেশ্যে ১০০ দিনের কাজ না দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিজেপির পরিচালিত গ্রাম পঞ্চায়েত ভীমপুর এবং লালগেড়িয়া অঞ্চলে ,বিশেষত লালগেড়িয়া অঞ্চলের পাঁচটি পঞ্চায়েত যেখানে তৃণমূল কংগ্রেসের পঞ্চায়েত সদস্য কেঁউদি , অভয়া, মুসিনা, আসনাবনি, রঞ্জা সংসদের অন্তর্গত 10-12 টি গ্রামের প্রায় 800 পরিবারকে বিগত দেড় বছরে একদিনও কাজ করতে দেওয়া হয়নি , মূলত যে সমস্ত পরিবার তৃণমূল কংগ্রেসের সমর্থক বা কর্মী রূপে কাজ করেছেন দীর্ঘদিন উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে কেবলমাত্র সেই পরিবারগুলিকে বেছে বেছে 100 দিনের কাজ থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে , 2019 সালের বিভিন্ন সময় এই সমস্ত শ্রমিকেরা বার বার ব্লক প্রশাসন বিডিও থেকে শুরু করে জেলা প্রশাসন ডিএম সভাধিপতি সহ সমস্ত প্রশাসনিক ক্ষেত্রে দরবার করেছেন , এমনকি বেশ কয়েকবার গ্রাম পঞ্চায়েতের ডেপুটেশন পর্যন্ত দেওয়া হয়েছে শ্রমিকরা বিক্ষোভ পর্যন্ত দেখেছেন তা সত্ত্বেও কোন শক্তির সাহায্যে তাদের কাজ প্রদান করা হচ্ছে না সেটা তারা বুঝতে পারছে না ,গত অর্থবছর শেষ হওয়ার পূর্বে শালবনেীর বিডিও জবকার্ড হোল্ডার বঞ্চিত এই শ্রমিকদের আশ্বাস দেন যে দুই হাজার কুড়ি একুশ অর্থবর্ষ শুরু হলেই তারা 100 দিনের কাজ পাবেন, লকডাউন এর মধ্যেই সরকার 100 দিনের কাজের প্রকল্প শুরু করবার নির্দেশ দিলে এই পাঁচটি গ্রাম সহ ভীমপুর অঞ্চলের আঁধারমারা ভীমপুর এবং লক্ষণপুর সংসদের পঞ্চায়েত নির্বাচিত তৃণমূল কংগ্রেসের পঞ্চায়েত সদস্যরা এই দুইটি গ্রাম পঞ্চায়েতের বিজেপি পরিচালিত প্রধান এর কাছে 100 দিনের কাজ পাওয়ার আবেদন পত্র 4ক জমা দিতে গেলে প্রধান তা নিতে অস্বীকার করে এবং সমস্ত পঞ্চায়েত সদস্যদের ফিরিয়ে দেয় , এরপর পঞ্চায়েত সদস্যরা সালবনি ব্লকের বিডিও সঞ্জয় মালাকারের দ্বারস্থ হন ওনার কাছে সমস্ত চারের-ক ফর্ম জমা দিয়ে আসেন , কিন্তু এই ঘটনার ও 15 দিনের বেশি অতিক্রান্ত হয়ে গেল এ সমস্ত শ্রমিকদের কোনো রকম কাজ দেওয়া হয়নি যদিও অন্যদের কাজ দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ , লালগেড়িয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের কেউন্দি সংসদের পঞ্চায়েত সদস্য লক্ষ্মী চালক অভিযোগ জানান যে বিগত বছরে ও বারবার বিডিওর কাছে কাজ চাওয়ার আবেদন পত্র জমা দিয়েও শ্রমিকেরা কাজ পায়নি , এবং বর্তমান বছরেও একই অবস্থা , বিডিও সাহেবের উত্তর প্রধান নাকি কথা শুনছেন না , একদিকে লোকডাউনে যেখান মানুষের রুজিরুটি সম্পূর্ণ বন্ধ সেখানে জঙ্গলমহলে এই প্রান্তিক পরিবারগুলি বেঁচে থাকার জীবনরেখা বলতে ১০০ দিনের কাজ, সেখানেও বিজেপির এই নিম্ন মানের রাজনীতি ও অসহায় গরিব পরিবারগুলিকে আরো কষ্টের মধ্যে ঠেলে দিয়েছে , এই গ্রামগুলির শ্রমিকেরা জানান যদি আগামী ১০ দিনে তারা কাজ না পায় তবে তারা পঞ্চায়েত ও বিডিও অফিসের সামনে অবস্থানে বসবেন।যদিও বিজেপির তরফে সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে

Leave a Reply

Your email address will not be published.