প্রশাসন

শান্তিনিকেতনে পৌষমেলা করার দাবিতে স্মারকলিপি

খায়রুল আনাম (বিপাশা আর্ট প্রেস) ,

শান্তিনিকেতনের ঐতিহ্যবাহী পৌষমেলা করার দাবিতে স্মারকলিপি
         
করোনা আবহে ঐতিহ্যবাহী শান্তিনিকেতনের পৌষমেলা এবার অনুষ্ঠিত হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে  শান্তিনিকেতন ট্রাস্ট  এবং  বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ।   দেশ-বিদেশের মানুষের আগমণের পরিপ্রেক্ষিতে যাতে করোনার প্রভাব বৃদ্ধি পেতে না পারে, সে জন্যই তারা এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছেন বলে জানিয়ে দিয়েছে বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ।  বিগত শান্তিনিকেতনের বসন্তোৎসবও করোনার কারণে শেষ মুহূর্তে বাতিল করে দেওয়া হয়েছিলো। এরফলে যে সব হস্তশিল্পীরা   এই দু’টি উৎসবকে কেন্দ্র করে হস্তশিল্প বিপণনের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন, তাঁরা চরম আর্থিক সঙ্কটের মধ্য দিয়ে দিনাতিপাত করছেন।  এদিকে বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ জানিয়ে দিয়েছে যে, পৌষমেলা না হলেও শান্তিনিকেতনে পৌষ উৎসব যথারীতি হবে।  ৭ থেকে ৯ পৌষ বিশ্বভারতীর রীতি মেনে ভোরের বৈতালিক, ছাতিমতলায় উপাসনা, আম্রকুঞ্জের অনুষ্ঠান, খ্রিস্টোৎসব, নিদর্শনপত্র প্রদানের মতো অনুষ্ঠানগুলি  করোনাবিধি  মেনে যথারীতি   অনুষ্ঠিত হবে। ২ ডিসেম্বর বিশ্বভারতীর একটি বৈঠকেও  বর্তমান পরিস্থিতিতে শান্তিনিকেতনের পৌষমেলা না করার বিষয়েই  মত প্রকাশ করা হয়েছে।     বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ এবং শান্তিকেতন ট্রাস্টের  এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ  জানিয়ে ৩ ডিসেম্বর বোলপুর মহকুমাশাসকের দফতরে একটি স্মারকলিপি দিয়ে পৌষমেলা যথারীতি করার দাবি জানালো সাংস্কৃতিক  মঞ্চ। মঞ্চের পক্ষ থেকে বলা হয় যে,  বর্তমান পরিস্থিতিতে করোনা বিধি মেনে রাজ্য সরকার যেখানে বিভিন্ন অনুষ্ঠান  এবং মেলা করার অনুমতি দিচ্ছে  সেখানে পৌষমেলা করারই বা অনুমতি দেওয়া হবে না কেন ?  এই মেলার উপরে নির্ভর করে বহু মানুষ এবং হস্তশিল্পীদের জীবিকা নির্বাহ হয়ে থাকে।  তাই তাঁরা  ঐতিহ্যবাহী শান্তিনিকেতনের পৌষমেলা করার দাবি জানাচ্ছেন বলে বলা হয়েছে।  বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ এবং শান্তিনিকেন ট্রাস্ট বর্তমান পরিস্থিতিতে চিরাচরিত প্রথা মেনে পৌষ উৎসব করলেও পৌষমেলা  এবার অনুষ্ঠিত হবে না বলেই জানিয়ে দিয়েছে । বিশ্বভারতী একটি কেন্দ্রীয়  প্রতিষ্ঠান। তাই এক্ষেত্রে তাঁদের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হিসেবে মান্যতা পেয়ে থাকে।  তাই পৌষমেলা করা না করার সিদ্ধান্ত তাঁরাই নিতে পারে। এ ব্যাপারে রাজ্য সরকার কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারে  না বলেই বলা হচ্ছে। আর তাই  পৌষমেলা করার দাবি জানিয়ে মহকুমাশাসকের দফতরে স্মারকলিপি দেওয়াকে বিশ্বভারতী    কোনও গুরুত্ব দিতেও রাজি নয় বলে জানা গিয়েছে ।।    

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *