সাহিত্য বার্তা

মুখোশ; ভিতর ও বাহির

মুখোশ: ভিতর ও বাহির,


বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়,

শুঁয়োপোকা আজ খোলস ছাড়ে,
উড়ছে নতুন প্রজাপতি।
নুতন ডানায় ভর করে
মন মাঝারে রং লাগিয়ে,
ঠিকরে বেরোয় কিসের দ্যুতি?

শীতের শেষে গর্ত থেকে
খোলস ছেড়ে বেরোয় সাপ।
বিষের থলি পূর্ণ ওদের
দংশাই যদি
বাঁচাবে তোমায়,
সাধ্য কার আছে বাপ।

পিছন থেকে তীরটা ছোড়ে
এমনি ওদের কেরামতি
সামনে এলে ফল্গু সাজে,
বুকে প্রেমের বন্যা ডেকে,
গর্তেই সাঙ্গ ওদের বীরগতি।

মিষ্টি কথায় ভুলিয়ে আবার
পিছনে হানে মৃত্যুবান।
নিজেকে এমন সাজাতে সাজাতে
দেখাতে হয় যে কত সম্মান।

উপকারটা ভুলে গিয়ে
স্নেহ ভালোবাসকেও সওদা করে।
দর কষাকষির ওস্তাদিতে,
মান অভিমান সাঙ্গ করে,
মনুষ্যত্ব আজ আগুনে পোড়ে।

তবুও রোজ ভোরে আজও স্বপ্ন দেখি,
শিশিরে ভেজা শ্বেতশিউলি
আগের মতোই পেট ভরে খাই
পান্তা আর টোকো বিউলি।

মিথ্যা কথার জাল বুনে,
আর বানিয়ে ওই বালির বাঁধ
সুজন চোখে ছোট হয়ে
হারায় ওরা সম্পর্কের ছাদ।

স্বার্থ খালি দেখতে গিয়ে
পায়যে ওরা কতই সুখ
মুখোশের আড়ালে খুঁজে পায় তাই
হাজাররকম হিংস্র মুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *