প্রশাসন

সজলধারায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু, ক্ষতিপূরণ দাবি বীরভূমে

খায়রুল আনাম (সম্পাদক সাপ্তাহিক বীরভূমের কথা )

  সজলধারায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে যুবকের মৃত্যুতে ক্ষতিপূরণ দাবি
         
 গ্রামাঞ্চলের  মানুষদের মধ্যে  বিশুদ্ধ পানীয় জল সরবরাহের উদ্দেশ্যে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে ‘সজলধারা’  জল প্রকল্পের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এই প্রকল্পে ভূগর্ভস্থ জল উত্তোলন করে তা  পানীয় জলের প্রয়োজনে  সরবরাহ করা হয়ে থাকে। এমনই একটি জল প্রকল্প থেকে পানীয় জল আনতে গিয়ে শুক্রবার বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হলো  বিশ্বজিৎ বুট (৪২) নামে এক ব্যক্তির। আর এই ঘটনার জেরে বিদ্যুৎ দফতরের গাফিলতির অভিযোগ তুলে, মৃত ব্যক্তির পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন এলাকার মানুষজন। দুর্ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূম জেলার বোলপুর থানার বাহিরী–পাঁচশোয়া গ্রাম পাঞ্চায়েতের  খণ্ডঘোষ গ্রামে।     এলাকা সূত্রে জানা যায় যে, খণ্ডঘোষ গ্রামে সজলধারা প্রকল্পে যে জল প্রকল্পটি রয়েছে, তা থেকেই পানীয় জল সংগ্রহ করেন গ্রামের মানুষজন। এদিন বেলা এগারোটা নাগাদ গ্রামের বিশ্বজিৎ বুট  সেখানে জল আনতে গিয়ে জলে হাত দিতেই বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। তাঁকে উদ্ধার করে বোলপুর মহকুমা হাসপাতালে  নিয়ে আসা হলে  চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত বলে  জানান। গ্রামের মানুষজনের অভিযোগ, সজলধারা জল প্রকল্পটি যেখানে রয়েছে, সেখানকার বিদ্যুৎ তারে গোলযোগের বিষয়টি স্থানীয় গ্রাম  পঞ্চায়েত ও বিদ্যুৎ  দফতরকে একাধিকবার জানানো সত্বেও ওই বিদ্যুতের লাইনটি মেরামত না  করার ফলেই এমন মর্ম্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটে গেল। তারা ওই পরিবারটিকে ক্ষতিপূরণ দেবার দাবি জানিয়েছেন বিদ্যুৎ দফতরের কাছে। এলাকার মানুষ জানিয়েছেন, অত্যন্ত সাধারণ পরিবারের বিশ্বজিৎ বুটের বাড়িতে বৃদ্ধা মা, স্ত্রী, দুই শিশু কন্যা রয়েছে।  বিশ্বজিতই ছিলেন বাড়ির একমাত্র রোজগেরে ব্যক্তি। সরকারি সাহায্য ও ক্ষতিপূরণ না পেলে পরিবারটি চরম সমস্যার মধ্যে পড়বে বলে তাঁরা জানিয়েছেন ।।   

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *