সাহিত্য বার্তা

কবিতার নাম – তেরঙ্গা

তেরঙা,


মিতি হালদার ( সোদপুর ),

ধোঁয়াশায় মেশে আলো আঁধারি ছায়াদের খেলা,
চারিদিকে কত লাল,নীল,হলুদ,সবুজ মানুষদের ভিড়,
দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হয় যন্ত্রণা মৃত্যুবেলা,
মানুষ হলেও মনুষ্যত্বের ঠিকানা পরিবর্তনে ভাঙে অজস্র নীড়।
কখনও প্রেমিক কখনও হত্যাকারীতে সত্তা হয় স্থানান্তর,
জীবনের ললাটে প্রবঞ্চনা লোভ হিংসার স্পষ্ট হয় জয়টিকা,
মুখোশের খোলে মানুষরা যেন শামুকের দল,
পড়ে থাকে মিথ্যে স্বাধীনতার অহমিকা।
ভোটের রাজনীতিতে চারিদিকে শুধুই আকাল,
নেতা আর অভিনেতাদের সঙ্গে রোজনামচা,
রোজগারের হিসাবের খাতায় মুখভরা গাল,
আর ভাঙা মাটির ভাঁড়ে ঠান্ডা কালো চা।

আমি,নিজেকে খুঁজি সংবাদ পত্রের মৃত্যুমিছিলের আলপনায়,
চারিদিকে দেখি ভোটের উর্ধমুখী বৃদ্ধাঙ্গুলি,
সহস্র কোটি পলক পড়ে ঘোলাটে চোখের পাতায়,
আমার চারিদিকে প্রেমিকের ঘর্মাক্ত নোংরা এঁদো গলি।
আমি ক্ষুধা তৃষ্ণায় কাতরাই মানবী শোকে,
কোনটা ছড়া,কোনটা গল্প,কোনটাই বা প্রতিশ্রুতি?
সাধারণ এক সুখি নাগরিক তকমা নিয়ে বুকে,
রক্তাক্ত হিম শরীরে আমার স্বপ্নের হয় ইতি।
আমার গেরুয়া রঙের মাটির পোড়া হাড়ি,
আমার থালায় সাদা পান্তাভাত আর এক বাটি শাকপাতা সবুজ রঙা,
ভোটের রাজনীতি করে কি লাভ গরিবের বাড়ি?
আমার দেশের প্রতিটি ঘরে রোজ উঠুক এই “তেরঙা”।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *