বিধান শিশু উদ্যানে বড়দিন মেলা চলবে ১ জানুয়ারি পর্যন্ত

ক্রীড়া সংস্কৃতি

পারিজাত মোল্লা


প্রতি বছরের মতো এবছরেও কলকাতার হাডকো মোড় সংলগ্ন ‘বিধান শিশু উদ্যান’ চত্বরে সকাল থেকে কয়েকশো শিশু – কিশোরের কলকাকলিতে মুখরতি হল শিশু উদ্যান এলাকা । এইসব ক্ষুদেদের সাথে অবশ্যই ছিল তাদের বাবা মায়েরা। বড়দিন উৎসব উপলক্ষে উদ্যান জুড়ে উৎসবের আমেজ। গত ২৫ ডিসেম্বর শুরু হয়েছে, চলবে ১ লা জানুয়ারী পর্যন্ত। অনেকেই বাড়ি থেকে তৈরি করা খাবার নিয়ে সবুজ ঘাসের ওপর শতরঞ্জি বিছিয়ে শীতের আমেজ উপভোগে ব্যস্ত। যাদের বাড়ির তৈরি খাবার নেই তাদের জন্য তো বিধান শিশু উদ্যান জুড়ে রয়েছে ফুচকা,ভেলপুরী, ঘুঘনি সহ হরেক রকমের খাবারের আয়োজন। এইসব উৎসবের দিনগুলি বিধান শিশু উদ্যান হয়ে ওঠে সাধারণ ঘরের মানুষদের সত্যিকারের বেড়ানোর জায়গা। এখানে নেই কোনো প্রবেশ মূল্য। সপরিবারে যেমন হাজার হাজার মানুষ আসেন, তেমনি আবার বিভিন্ন বয়সের বন্ধুরা সব দল বেঁধে এসে আড্ডায় মেতে থাকে। ছোটোরা দৌড়দৌড়ি করছে সারা মাঠ জুড়ে। কেউ খেলছে ক্রিকেট। আবার অন্য কেউ বা র‍্যাকেট। অনেকেই খেলার উপকরণ হাতি কিংবা সিংহের পিঠে চেপে বসে আছে। বাবা মায়েরা মোবাইলে ফটাফট ছবি তুলছেন।দিচ্ছেন ফেসবুক কিংবা হোয়াটস অ্যাপে আপডেট।
এতো গেল শুধু বিধান শিশু উদ্যানের চিত্র। কিন্তু এর পাশাপাশি চলছে বিধান শিশু উদ্যান পরিচালিত সারা রাজ্যজুড়ে ২০২০ সালের মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক ছাত্র ছাত্রীদের প্রস্তুতির হিসেবে বিএসইউ প্রয়াসের মক টেস্ট এর আয়োজন। এই মক টেস্ট চলবে ৩১ ডিসেম্বর পযর্ন্ত।এরপর ডাউট ক্লিয়ারিংয়ের ক্লাস শুরু হচ্ছে । এই মকটেস্টের পর্ব শেষ হতে হতেই এসে যাবে মহাকাশ প্রদর্শনী ইসরোর সহযোগিতায়। ভারতবর্ষে মহাকাশ গবেষণার জনক ড.বিক্রম আম্বালা সারাভাইয়ের জন্মশতবর্ষ উৎযাপনের অঙ্গ হিসাবে বিধান শিশু উদ্যানে এই প্রদর্শনীর অন্য গুরুত্ব রয়েছে। আর অন্যান্য বছরের মতো প্রদর্শনীর পাশাপাশি চলবে কুইজ,বিতর্ক এবং তাৎক্ষণিক বক্তৃতার প্রতিযোগিতা। অংশগ্রহণ করবে ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ছাত্রীরা।২২ থেকে ২৪ জানুয়ারি চলবে এই আয়োজন। অবশ্যই থাকবে মডেল তৈরীর প্রতিযোগিতা। থাকছেই প্রতি বিভাগে প্রথম হওয়া ছাত্র ছাত্রীদের শিক্ষক শিক্ষিকাসহ নিঃখরচায় শিক্ষামূলক ভ্রমনের ব্যাবস্থা।উল্লেখ্য, বাংলার রুপকার মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে পরিচিত বিধান চন্দ্র রায় স্মরণে তাঁর একদা ডানহাত সর্বভারতীয় কংগ্রেস নেতা তথা কাঁনাদাদু খ্যাত অতুল্য ঘোষ এই বিধান শিশু উদ্যোন টি গড়েন। মূলত শিশুদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য। এখানে ছবি আঁকা, সাঁতার শেখা থেকে বৃত্তিমূলক পরীক্ষার আয়োজন থাকে। নামমাত্র খরচে এই বিপুল কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে বিধান শিশু উদ্যান সংস্থাটি। এই সংস্থার সম্পাদক গৌতম তালুকদার জানান – “বড়দিন উপলক্ষে ক্ষুদেদের বিনোদনের সমস্ত উপকরণ রয়েছে এই শিশু উদ্যানে, কোন প্রবেশমূল্য নেই “।

Leave a Reply

Your email address will not be published.