ছবির প্রচারে সত্যজিৎ পুত্র সন্দীপ রায়

ক্রীড়া সংস্কৃতি

ছবির প্রচারে সন্দীপ রায় এলেন দুর্গাপুরে

শম্পা প্রামাণিক

দুর্গাপুর:- শুধুমাত্র শহর কলকাতায় নয়। জেলাতেও সমানভাবে জনপ্রিয় ‘প্রোফেসর ত্রিলোকেশ্বর শঙ্কু’। দুর্গাপুরে এসে নিজের চোখে দেখে পরখ করে গেলেন পরিচালক সন্দীপ রায়। সাক্ষী হিসেবে থাকলেন সাথে থাকা দুই অভিনেতা ধৃতিমান চট্টোপাধ্যায় এবং শুভাশিস মুখোপাধ্যায়।

দুর্গাপুরের সিটি সেন্টারে অবস্থিত একটি প্রেক্ষাগৃহে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হবার কথা ছিল পরিচালক সন্দীপ রায়ের টিমের। কিন্তু পথে এনআরসি এবং সিএএ নিয়ে বিক্ষোভের মুখে পড়ে আসতে দেরি হয়। যা পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে জানান খোদ পরিচালক। প্রায় ঘণ্টা দুয়েক পর সাংবাদিকদের সাথে সাক্ষাৎ এর সুযোগ করে দেয় প্রযোজক সংস্থার কর্মকর্তারা। শহরের একটি নামী বেসরকারি হোটেলের লনে খোলা আকাশের নিচে। কিন্তু সেখানে অ্যামেচার ক্যামেরাম্যানদের ভিড়ের মাঝে অনেকটাই হোঁচট খেতে হয় প্রফেশনাল সংবাদ মাধ্যমের কর্মীদের। এরইমধ্যে সংবর্ধনার পালা শেষ হতেই ডাক পড়ে সাংবাদিকদের। মুখোমুখি হন কলকাতা থেকে আসা টিম ‘প্রোফেসর শঙ্কু ও এল ডোরাডো’।

শীতের সন্ধ্যায় উৎসাহী সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে ছবির পরিচালক সন্দীপ বাবু জানান প্রযোজক সংস্থার পক্ষ থেকে ছবির প্রচারের জন্য আবেদন জানানোয় দুর্গাপুরে আসা। জেলা সফরে এসে খুবই উৎসাহ বোধ করছি, উপস্থিত জনতার ছবির প্রতি উৎসাহ দেখে। ছবি যদি বাণিজ্যিক দিক থেকে সফল হয়, তবেই আগামী দিনে প্রোফেসর শঙ্কুকে নতুন গল্পে বড় পর্দায় পাওয়া যাবে। ছবিতে প্রফেসরের ভূমিকায় থাকা ধৃতিমান চট্টোপাধ্যায় বলেন ব্রাজিলের অ্যামাজন ও সাও পাওলোর জঙ্গলে স্থানীয় আদিবাসীদের সাথে অভিনয় করা একটি নতুন অভিজ্ঞতার সঞ্চয়। আশা করি ছবিটি সমস্ত দর্শকের ভালো লাগবে। তবে সাংবাদিকদের সি এ এ এবং এনআরসি নিয়ে প্রশ্নের কোন উত্তর দিতে চাননি ঋদ্ধিমান।নকুল চন্দ্র বিশ্বাস এর ভূমিকায় অভিনয় করা শুভাশিস মুখোপাধ্যায় বলেন সন্দীপ রায় (বাবুদা)এর ছবিতে অভিনয় করার জন্য প্রত্যেকটি অভিনেতা অভিনেত্রী মুখিয়ে থাকেন। গোসাইপুর সরগরম, জাহাঙ্গীরের স্বর্ণমুদ্রা, গোরস্থানে সাবধানে কাজ করেছি পরিচালক বাবুদার ডাকে। কিন্তু এবারের অভিনয় করার অভিজ্ঞতাটা ছিল ভিন্নমাত্রার এবং অবশ্যই রোমাঞ্চকর। আগামী দিনে দর্শকরাই আমার অভিনয় ব্যাপারে বিচার করবেন। আমি আশাবাদী ছবির সফলতা নিয়ে।

সেলুলয়েডের পর্দায় সত্যজিৎ রায়ের কালজয়ী সৃষ্টি শিল্পাঞ্চল দুর্গাপুরের সিনেমাপ্রেমীদের কাছে কতটা সাড়া ফেলবে তা সময় বলে দেবে। তবে সিনেমার প্রচারে সন্দীপ রায়ের মতন বড় মাপের পরিচালক কে পেয়ে অনেকেরই যেমন সামনা-সামনি দেখার সাদ মিটিয়েছে। তেমনি পরিচালক এর আসার খবর আগাম না জানতে পারার, আক্ষেপ রয়ে গেছে সিনেমা প্রেমী বেশ কিছু শিল্পাঞ্চল বাসীর কাছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.