আনন্দলোকের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

প্রশাসন

আনন্দলোকের সমাবর্তন

দীপঙ্কর চক্রবর্তী



রবিবার আয়েজিত হল পূর্বস্হলীর পারুলিয়া আনন্দলোক সংগীত মহাবিদ্যালয়ের ৬১ তম সমাবর্তন উৎসব।এই সংস্হার প্রান পুরুষ প্রয়াত ব্রজেন্দ্র কুমার চক্রবর্ত্তী ১৯৪৬ সালে এখানে আগুন জালিয়ে বন কেটে বাঘ তাড়িয়ে ছিন্নমূলের নিয়ে বসতি স্হাপন করেন।এখানকার মানুষ ছেলেমেয়েদের সাংস্কৃতিক মন গড়েছেন।তাঁর পুত্র দীপঙ্কর চক্রবর্ত্তী জানান বিষয় ভিত্তিক শিক্ষার সঙ্গে চিত্তের বিকাশ ঘটাতে পারে সংগীত ও চারুবিদ্যা।আর তাতেই মানুষ পেতপ পারে সত্য ও সুন্দরের পথের সন্ধান।এখানে তিনি আনন্দলোক প্রতিষ্ঠা করেন ১৯৫৮ সালে।রাজ্যের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ আজকের সমাবর্তন উৎসবের সূচনা করে পূর্বস্হলী সহ বিভিন্ন এলাকায় ব্রজেন বাবুর কাজ,সংগীতের প্রসার তাঁর ছবি আঁকা, সমাজ সেবা প্রবৃতি নিয়ে বলেন ং তিনিওঅনুপ্রানিত হয়ে এখন সব কাজ করেন সেগুলো বলেন।ব্রজে বাবুকে নিয়ে লেখা পিলসুজ পত্রিকাও প্রকাশ করেন।সকাল থেকে রাত পর্যন্ত আলোচনা,নৃত্য,সংগীত প্রভৃতি হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.