সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বাড়াতে সক্রিয় ‘নবাগত’ মঙ্গলকোট ওসি

পুলিশ

মোল্লা জসিমউদ্দিন

এনআরসি এবং ক্যাব আইন ঘিরে সারা বাংলায় যখন অশান্তির বাতাবরণ বইছে। যেখানে কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ পর্যন্ত রাজ্যের কাছে আইনশৃঙ্খলার রিপোর্ট তলব করে নেয় । ঠিক এইরকম পরিস্থিতিতে ‘এমএসডিপি’ ব্লক পরিচিত পূর্ব বর্ধমানের মঙ্গলকোটে এলাকার সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বাড়াতে উদ্যোগী হলেন স্বয়ং ওসি।এখনও তাঁর মঙ্গলকোটে ওসি পদে দায়িত্ব নেওয়া একমাস হয়নি। তার মধ্যেই তিনি এলাকার সমস্ত মসজিদ – মাদ্রাসার কর্মকর্তাদের পাশাপাশি পঞ্চায়েত স্তরের জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে শান্তি বৈঠক সারেন। চলতি সপ্তাহে এই বৈঠকে শতাধিক ইমাম – মোয়েজ্জেন এবং পঞ্চাশের কাছাকাছি জনপ্রতিনিধি আসেন এই সভায়।সংখ্যালঘু অধ্যুষিত এলাকায় এনআরসি এবং ক্যাব নিয়ে যাতে এলাকায় অশান্তি না ঘটে সেই ব্যাপারে সবার সহযোগিতা চান নবাগত মঙ্গলকোট ওসি মিঠুন ঘোষ। সর্বভারতীয় এক সংখ্যালঘু সংগঠনের ব্লক সম্পাদক হাফেজ সাবির আলি বলেন – “ওসি সাহেবের বিনয়ী আবেদনে আমরা সাড়া দিয়েছি, কোথাও হিংস্বাত্মক প্ররোচনায় পা দিতে বারণ করেছি কর্মী সমর্থক সর্বপরি সাধারণ মানুষদের কে” । মঙ্গলকোট কে অশান্ত করতে বরাবরই তৎপর এক শ্রেণির কুমতলবি।মঙ্গলকোটের  সদর শহর নুতনহাটে এক পুজো কমিটির বিসর্জন ঘিরে তুমুল উত্তেজনা ঘটেছিল একসময়। এমনকি বেশ কয়েকজন পুলিশ কর্মী আহত হয়েছিলেন বিসর্জন ঘিরে  । আবার বর্ধমান শহরে খাগড়াগড় বিস্ফোরণে যোগসুত্র পাওয়া গিয়েছিল মঙ্গলকোটের শিমুলিয়ার। হাতেগোনা কিছু মানুষদের সামনে রেখে  বিভেদ সৃষ্টি করার প্রয়াস নেওয়া হলেও বারবার তা নিস্তেজ হয়েছে মঙ্গলকোটের বুকে। এখনও পল্লিবাংলায় হিন্দু বাড়িতে নবান খেতে যায় প্রতিবেশী মুসলিমরা। আবার মঙ্গলকোটে প্রায় মসজিদে সন্ধেবেলায় ইমাম সাহেবদের কাছে ‘ইশ্বরের করুণা’ পেতে মাদুলিতাবিজ নিতে আসেন হিন্দু মানুষরা।একে অপরের প্রতি   বিশ্বাস আরও বাড়াতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বাঁধন কে আরও মজবুত করতে উদ্যোগী হলেন ওসি মিঠুন ঘোষ মহাশয়। মঙ্গলকোটের ইতিহাস বলছে – এই মঙ্গলকোটেই মুঘল সম্রাট শাহজাহানের শিক্ষা ও দীক্ষাগুরু আব্দুল দানেশখান্দ হামিদ ( হামিদ বাঙ্গালী) সম্প্রীতির অটুট নিদর্শন রেখেছেন  সুদুর পারস্য থেকে পায়ে হেঁটে এসেও । আবার “মোরা একই বৃন্তে দুটি কুসুম হিন্দু মুসলমান ” কবিতার সৃষ্টিকর্তা বিদ্রোহী কবি কাজি নজরুল ইসলামের মামারবাড়ি এই মঙ্গলকোট। এহেন মঙ্গলকোটে এনআরসি  নিয়ে যাতে  কোন বিভ্রান্তি না হয় সেজন্য এইধরনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানান ওসি মিঠুন ঘোষ মহাশয়।                                                                                                                              

Leave a Reply

Your email address will not be published.