ঝাড়গ্রাম সেবায়তন মিশন আশ্রমের উদ্যোগ

প্রশাসন

ঝাড়গ্রাম সেবায়তন মিশন আশ্রমের উদ্যোগ

রাজকুমার দাস



ঝাড়গ্রাম সেবায়তন মিশন আশ্রম একটি জনপ্রিয় আশ্রম, স্বামী সত্যানন্দ গিরি মহারাজ এটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন । এখানে শিক্ষা , সেবা ও সাধনা- এই তিনটি বিষয় নিয়ে ত্রিধারায় এগিয়ে চলে এর কাজ ।
শিক্ষার ব্যাপারে আশ্রমের মহারাজ প্রতিষ্ঠা করেছেন বেশ কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ; যেমন একটি বি.এড কলেজ , যেটি ঝাড়গ্রাম বি.এড কলেজ নামে পরিচিত । একটি টেকনিক্যাল কলেজ -যেটি ঝাড়গ্রাম ঈশ্বরচন্দ্র পলিটেকনিক কলেজ এবং তার সঙ্গে জুনিয়র পলিটেকনিক কলেজ । এছাড়া আছে একটি হায়ার সেকেন্ডারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান , একটি গার্লস স্কুল । রয়েছে প্রাথমিক ও শিশু শিক্ষা নিকেতন । এই ঝাড়গ্রাম সেবায়তন মিশন আশ্রমের পরিচালনায় আছে মূক ও বধির বিদ্যালয় । বর্তমানে এগুলি পরিচালনা করেন শ্রীমৎ স্বামী বিরজানন্দ গিরি মহারাজ এবং তার আশ্রম । ক্রিয়াজোগের প্রচার করেন স্বামী বিরজানন্দ গিরি মহারাজ ।
তিনি গত 7 ই নভেম্বর কোলকাতার রাজভবনে উপস্থিত হয়েছিলেন । সেখানে রাজ্যপাল মাননীয় শ্রী জগদীপ ধনকড় কে স্বামীজী তাঁর লেখা ‘ অমর ক্রিয়াজোগ ‘ বই টি তুলে দেন ।
একই সঙ্গে রাজভবনে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট লেখক শিক্ষারত্ন ডঃ চিত্তরঞ্জন মাইতি ; তিনি রাজ্যপালের হাতে তুলে দিয়েছেন তাঁর লেখা দুটি বই :- 1. সাধক বিরজানন্দ ও প্রাসঙ্গিক ভাবনা ও
2. Seience in Indian yoga and meditation.
উপস্থিত ছিলেন অভিনেত্রী জয়িতা ; জয়িতা তার লেখা প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘অপ্রত্যাশিত ভূমিকা ‘ তুলে দেন মাননীয় রাজ্যপালের হাতে ।
এছাড়া কৃষিবিজ্ঞানী ডঃ কাঞ্চন কুমার ভৌমিক ও ছিলেন । তিনি অরিত্র জানার ‘ Emergung genius ‘ বই টি দেন রাজ্যপাল কে ।
এছাড়া ছিলেন সুকেশ কুমার মণ্ডল , তিনি দিয়েছেন তাঁর লেখা অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি উপন্যাস ‘পণ্ডিত স্যার’ ।
স্বামী বিরজানন্দ গিরি মহারাজ আহ্বান জানিয়েছেন আগামী 24 শে ডিসেম্বর ঝাড়গ্রাম সেবায়তন এর প্রতিষ্ঠা দিবস পালিত হবে সেই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির আসন অলংকৃত করার জন্য ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.