ডেঙ্গু আক্রান্ত সন্দীপকুমার খান্ডেলওয়ালের জীবন দিল কাঁকুড়গাছির ‘চারিং ক্রস নার্সিংহোম’

প্রশাসন

ডেঙ্গু আক্রান্ত সন্দীপকুমার খাণ্ডেলওয়াল (৪৯)এর প্রাণ বাঁচালো কাঁকুরগাছি র ” চারিং ক্রস নার্সিংহোম”:–

রাজকুমার দাস

কাঁকুরগাছি র “চ্যারিং ক্রস নার্সিংহোম প্রাইভেট লিমিটেড’-এর সুচিকিৎসায় প্রায় মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে গেলেন ডেঙ্গু পীড়িত বছর উনপঞ্চাশের সন্দীপকুমার খাণ্ডেলওয়াল ।বাড়ি গিরিশ পার্ক অঞ্চলে।

রাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগ যখন কোলকাতা তথা রাজ্যে ডেঙ্গু রোগ আছে বা হচ্ছে বলে স্বীকার না করে এই রোগকে অজানা জ্বরের তকমা লাগিয়ে দিয়েছে, ঠিক তখন ডেঙ্গুর উপসর্গ বেড়ে যাওয়ায় সন্দীপকুমার খাণ্ডেলওয়ালকে কোলকাতার ‘মারোয়াড়ি রিলিফ হসপিটাল’ ছেড়ে দেয় বলে এক সাংঘাতিক অভিযোগ করেন আক্রান্ত ব্যক্তির ছেলে।

খাণ্ডেলওয়াল পরিবারের বক্তব্য অনুযায়ী, “সন্দীপকুমার-কে যখন মারোয়াড়ি রিলিফ হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয় তখন ওঁনার অবস্থা গুরুতর। কী করব কিছুই বুঝে পাচ্ছিলাম না, এই অবস্থায় আমরা সন্দীপকে নিয়ে আসি এই হাসপাতালে।”

সন্দীপকুমার খাণ্ডেলওয়ালের পরিবারের বক্তব্যকে সমর্থন করে ‘চ্যারিং ক্রস নার্সিংহোম প্রাইভেট লিমিটেড’-এর তরফ থেকে জানানো হয়েছে, “গত ১৬ অক্টোবর ডাঃ অনির্বান চৌধুরী-র তত্ত্বাবধানে খাণ্ডেলওয়াল-কে যখন ভর্তি করা হয় তখন তাঁর প্লেটলেট কাউন্ট নেমে এসেছে ১৫ হাজারে, টি সি ৩,১০০, বিল ২.৭, সি আর ১.২, ইউ আর ৪৭, এস জি ও টি ৬১, এস জি পি টি ৪২ এবং এলকালাইন ফসফেট ১১৫। অর্থাৎ আমরা বেশ সঙ্গীন অবস্থাতেই সন্দীপকুমার খাণ্ডেলওয়াল-কে চিকিৎসার জন্য পেয়েছিলাম।

আমাদের চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে ১২ ইউনিট প্লেটলেট প্যাক পাওয়ার পর এই মুহুর্তে সন্দীপকুমার খাণ্ডেলওয়াল-এর প্লেটলেট পৌঁছে গেছে ২ লাখ ১০ হাজারে, একইভাবে টি সি বেড়ে হয়েছে ৬,৫০০।
সব কিছু ঠিক থাকলে খুব তাড়াতাড়িই আমরা সন্দীপকুমার খাণ্ডেলওয়াল-কে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেবো।”

প্রসঙ্গতঃ বলে রাখা ভালো, সন্দীপকুমার অত্যধিক জ্বর, নাক দিয়ে রক্তপাত ও ডেঙ্গু সংক্রান্ত অন্যান্য বৈশিষ্ট্য নিয়েই হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন,তার ইউরিন দিয়ে রক্তপাত ও হয়।

আজ সাংবাদিকদের সামনে চিকিৎসাকালীন তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা জানাতে গিয়ে খাণ্ডেলওয়াল পরিবার জানান, “ওই রকম বিপজ্জনক অবস্থায় ই এম বাইপাস লাগোয়া এক নামকরা স্বাস্থ্য সংস্থা আমাদের রোগীকে ভর্তি নেয়নি।”

খাণ্ডেলওয়াল পরিবারের এই দাবী মানতে গেলে বলতেই হবে, মুখ্যমন্ত্রীর কোনো আদেশেই ভ্রুক্ষেপ করছে না ই এম বাইপাস সংলগ্ন ওই স্বাস্থ্য সংস্থা। মুখ্যমন্ত্রী আগেই বলেছিলেন, “কোনো অবস্থাতেই চিকিৎসা না দিয়ে ফেরানো যাবেনা মুমূর্ষু রোগীকে।”

এই মুহুর্তে কোলকাতার সেরা চিকিৎসকদের বক্তব্য অনুযায়ী, “রোগীর প্লেটলেট কাউন্ট ৩০ হাজারের নীচে নেমে এলে তাঁকে অবিলম্বে কোনো হাসপাতালে ভর্তি করতে হবে। আর প্লেটলেট ১০ হাজারের নীচে নেমে গেলে তখন কালবিলম্ব না করে অবিলম্বে প্লেটলেট দিতে হবে।”

তবে এই মুহুর্তে কোলকাতা তথা রাজ্যের বেশিরভাগ চিকিৎসকেরাই হুট করে আর রোগীদের প্লেটলেট দিতে চাইছেননা।
কারণ হিসেবে তাঁরা বলছেন, “প্লেটলেট প্যাক হাতে পাওয়ার আধঘণ্টার ভেতরেই শরীরে প্রবেশ করানো প্রয়োজন নইলে প্লেটলেট শরীরে দেওয়ার কোনো মানেই হয়না, এবং দ্বিতীয়তঃ, প্লেটলেট হাতে পাওয়ার পর রোগীর কাছে আনতে গিয়ে যত ঝাঁকুনি খাবে প্লেটলেট সেলগুলো ততই নষ্ট হবে। বেশকিছু ক্ষেত্রে দেখা গেছে প্লেটলেট রিসিভিং কাউন্টার থেকে প্লেটলেট নিয়ে রোগীর কাছে আসতে গিয়ে একদিকে যেমন আধঘণ্টা পেরিয়ে যাচ্ছে তেমনই গাড়ীর ঝাঁকুনিতে প্লেটলেট সেলও ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে পড়ছে।”
স্বাভাবিকভাবেই এখন রোগীকে দুমদাম প্লেটলেট প্রেসক্রাইব করা বন্ধ করেছেন চিকিৎসকেরা। তাঁর পরিবর্তে রোগীকে অন্যভাবে তাড়াতাড়ি সুস্থ করার চেষ্টা করছেন চিকিৎসকেরা। তাঁদের বক্তব্য, “রোগী যদি নিজের মুখে খাওয়া শুরু করে সেক্ষেত্রে শারীরবৃত্তীয় কারণেই প্লেটলেট ধীরে ধীরে বাড়বে।”
যাক আপাতত ডেঙ্গুর হাত থেকে যেন সকলে রেহাই পায়,এবং সবাই যেন একটু সচেতন হয়ে চলে সেই আবেদন রাখেন উক্ত নার্সিংহোমের ডাক্তারবাবুরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.