পাঁশকুড়ায় তৃণমূল নেতা খুনে সিআইডি তদন্ত দাবি

পুলিশ

জুলফিকার আলি

পাঁশকুড়া,৮ অক্টোবর: গতকাল মাইসোরয় নিজের দলীয় কার্যালয়ে খুন হন পাঁশকুড়া ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যকরী সভাপতি কুরবান শাহ (৩২)। রাত সাড়ে দশটা নাগাদ খুব কাছ থেকে তাকে গুলি করে বেশ কয়েকজন দুষ্কৃতী। রাতেই ঘটনাস্থলে পাঁশকুড়া থানার পুলিশ পৌঁছে দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য তমলুক জেলা সদর হাসপাতালে পাঠায়। ঘটনার পর থেকে এদিন সকালেও থমথমে গোটা এলাকা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, পাঁশকুড়ার দিক থেকে তিনটি বাইকে করে সাতজন দুষ্কৃতী ফায়ারিং করতে করতে কুরবান শাহ’র অফিসের সামনে এসে থামে। সে সময় কুরবান নিজের অফিসে তিন ব্যক্তির সাথে কথা বলছিলেন। বাইরে কিছুটা দূরে অপেক্ষারত ছিলেন তার অনুগামীরা। কিছু বুঝে ওঠার আগেই খুব কাছ থেকে তাকে বেশ কয়েকটি গুলি করে। গুলি তার বুকে ও মাথায় লাগে। ঘটনাস্থলেই গুলিবিদ্ধ হয়ে লুটিয়ে পড়েন তিনি। পরে দুষ্কৃতীদের ধরার জন্য অনুগামীরা ইট-পাথর ছুড়লেও তারা ফের ফায়ারিং করতে করতে এলাকা থেকে চম্পট দেয়। ঘটনার পর থেকেই এলাকায় তীব্র আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনার পর থেকেই দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে সরব হয়েছে এলাকাবাসী। সকাল থেকেই স্থানীয় বাসিন্দারা ভিড় বাড়তে শুরু করেছে মাইসোরার দলীয় কার্যালয়ের বাইরে। ঘটনার পর থেকেই শোকাচ্ছন্ন শাহ পরিবার। বারং বার মূর্ছা যাচ্ছেন মাইসোর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান তথা কুরবান শাহ’র সায়েদা সাবানা বানু খাতুন।

কুরবান শাহ’র দাদা আবজল আলি শাহ ভাইয়ের মৃত্যুর সিআইডি তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। তিনি বলেন ভাই এলাকায় যথেষ্ট ভাল রাজনীতি করত। যে কারণেই খুন করা হয়েছে। রাজনৈতিক কারণেই বলি হতে হয়েছে তাকে। ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত করে দোষী ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রশাসন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.