জয়হিন্দ বাহিনীর বর্ধমানে কর্মসূচি

রাজনীতি

সোমনাথ ভট্টাচার্য

বুধবার,পূর্ব বর্ধমান জেলার এক স্থানীয় হোটেলে,জয়হিন্দ বাহিনীর আহ্বায়ক রবিন নন্দী বলেন,পুজোর মধ্যে জয় হিন্দ বাহিনী অনেক কাজ করেছে,যার মধ্যে বিভিন্ন জায়গায় নির্মল বাংলার জন্য ব্লিচিং পাউডার ছড়ানো,পুজো পরিক্রমা,শারদ সম্মান প্রদান, বাহিনীর নিজ নিজ জায়গায় অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা,প্রভৃতি কর্মকাণ্ড।এদিন জয় হিন্দ বাহিনীর গলসি ১ নম্বর ব্লকের সভাপতি বাসুদেব মন্ডল,ও চেয়ারম্যান কালিপদ দে কে নির্বাচিত করা হয়,তাদের ভাল কাজ কে সামনে রেখে।আগামী ১৪ ই অক্টোবর বর্ধমান স্টেশন এলাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যে জল এবং মিষ্টি বিতরণ কর্মসূচি হবে।১৫ অক্টোবর জয় হিন্দ বাহিনীর বৈঠক হবে,২০ অক্টোবর বর্ধমান ২ নম্বর ব্লকে এনআরসি বিরুদ্ধে পদযাত্রা হবে,২৬ শে অক্টোবর অর্থাৎ কালীপুজোর আগের দিন বর্ধমান শহরের ঘোড়দোড় চটিতে রক্তদান শিবির হবে যেটা বর্ধমান মেডিকেল কলেজে দেওয়া হবে।তিনি জানান দেবী প্রতিমা বিসর্জন হয়েছে,মহিষাসুরমর্দিনীর বিসর্জন হয়নি, মহিষাসুরমর্দিনীর মধ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সজাগ থাকবেন। বাংলার সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিকে বিনষ্ট করার জন্য যে মহিষাসুর দের আবির্ভাব হয়েছে,আগামী দিনে বাংলার জনগণ তার বিনাশ করবে।এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে সামনে রেখে,রাজ্য জয় হিন্দ বাহিনীর সভাপতি কার্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের আহবানে পূর্ব বর্ধমান জেলার জয় হিন্দ বাহিনীর পক্ষ থেকে জেলার কোর কমিটি দের নিজেদের মধ্যে মত বিনিময় আদান প্রদান হলো।এদিন এই কর্মসূচীতে উপস্থিত ছিলেন,পূর্ব বর্ধমান জেলার উত্তর বিধানসভার বিধায়ক নিশীথ মালিক।

Leave a Reply

Your email address will not be published.