চাউমিনে পেঁয়াজ কই? বলতেই মার খেল বাপ-মেয়ে

পুলিশ

ক্যানিং জয়দেব পল্লীতে পেঁয়াজ নিয়ে বচসা,গুরুতর জখম ২ জন।

সৃজনশীল দক্ষিণ ২৪পরগনা।

আজ বিজয়ার প্রতিমা দেখতে এসে পেঁয়াজকে কেন্দ্র করে বচসার জেরে জখম হয় ২ জন বাবা ও মেয়ে।আর এই ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে।জখম বাবা ও মেয়ের নাম শচীন্দ্রনাথ রায়,সুরভী রায়।ঘটনাটি ঘটে দক্ষিণ ২৪ পরগনার ক্যানিং থানার জয়দেব পল্লী গ্রামে।স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে বর্তমান বাজারে পেঁয়াজের দাম অগ্নিমূল্য হওয়ায় ছোট বড় হোটেল এবং রেষ্টুরেন্ট গুলিতে পেঁয়াজের আনাগোনা একেবারেই তলানিতে ঠেকেছে।ক্যানিং বাজারে পেঁয়াজের দাম উঠেছে ১ কেজি ৫০ থেকে ৬০ টাকা।ফলে সাধারণ মানুষজন থেকে শুরু করে ব্যবসায়ীদের মাথায় হাত।আর এই পেঁয়াজ কে কেন্দ্র করে পুজোতে চাউমিনের দোকানে বিজয়া দশমীতে বেঁধে যায় বচসা দোকানদার ও খরিদ্দারের মধ্যে।দশমীর রাতে জীবনতলা থানার পিয়ালী কলাড়িয়া এলাকার বাসিন্দা শচীন্দ্রনাথ রায় ও তার মেয়ে সুরভী রায় এবং পরিবারের সদস্যরা প্রতিমা দেখতে আসে ক্যানিংয়ে বিভিন্ন পুজো মন্ডপ গুলিতে।তারা ক্যানিং জয়দেব পল্লী এলাকার একটি পুজো মন্ডপের সামনে চাউমিন খাওয়ার জন্য একটি চাউমিনের দোকানে যায়।পেঁয়াজের দাম অগ্নিমূল্য হওয়ায় পেঁয়াজ ছাড়াই চাউমিন দেন দোকানদার পঞ্চা দাস।ক্রেতা শচীন্দ্র নাথ রায় ও তাঁর কন্যা সুরভী রায় চাউমিনে পিয়াঁজ দিতে বললে বেঁধে যায় দোকানদারের সঙ্গে তাদের বচসা।বচসার জেরে উত্তেজিত হয়ে দোকানদার সুরভী রায় কে চুলের মুঠি ধরে বেধড়ক মারধোর করতে থাকে।আর এই দৃশ্য দেখে বাবা শচীন্দ্রনাথ রায় মেয়েকে মারধোরের হাত থেকে বাঁচাতে গেলে শচীন্দ্রনাথ রায় কে রাস্তায় ফেলে হাতা-খুন্তি দিয়ে বেধড়ক মারধোর করে জনাকয়েক দোকানাদার এমনি অঅভিযোগ।পরিস্থিতি বেগতিক দেখে স্থানীয় বেশ কয়েকজন বাবা ও মেয়েকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যায়।সেখানে তাদের চিকিৎসা চলছে।এ বিষয়ে জখমরা ক্যানিং থানায় অভিযোগ দায়ের করে।অভিযোগ পেয়ে পুলিশ তদন্তে নামে।মূল অভিযুক্ত পঞ্চু দাস পলাতক।তার খোঁজে পুলিশ চিরুনি তল্লাশি শুরু করেছে।তবে এখনও পর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হয়নি।পুলিশ জানান একটি পুজো মন্ডেপে বেশ কিছু মানুষজন চাউমিনের দোকান দেয় পুজোর কটা দিনের জন্য।সেখানে এক চাউমিনের দোকানে চাউমিনে পেঁয়াজ না দেওয়াকে কেন্দ্র করে খরিদ্দারের সঙ্গে দোকানদারের বচসা বেঁধে যায়।বচসার জেরে উত্তেজিত দোকানদার মারধর করলে জখম হয় খরিদ্দার বাবা ও মেয়ে।জখমরা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।এ বিষয়ে অভিযোগ দায়ের হয়েছে।অভিযুক্তরা পলাতক।তাদের খোঁজ চলছে।এ বিষয়ে পূর্ণ তদন্ত শুরু হয়েছে।

1 thought on “চাউমিনে পেঁয়াজ কই? বলতেই মার খেল বাপ-মেয়ে

Leave a Reply

Your email address will not be published.