নারদা কান্ডে সিবিআইয়ের ডাক পেতে পারেন বর্ধমানের এক মন্ত্রী?

পুলিশ

গত বৃহস্পতিবার সিবিআইয়ের অফিসে আইপিএস সৈয়দ হুসেন আলী মির্জা কে জেরার জন্য ডাকা হয়েছিল। নারদা মামলায় তদন্তকারীদের প্রশ্নের সদুত্তর দিতে না পারায় এই আইপিএস অফিসার কে গ্রেপ্তার করে সিবিআই। ব্যাংকশালের সিবিআই আদালতে পেশ করা হলে হুসেন আলী মির্জার ৫ দিনের সিবিআই হেফাজত হয়। শুক্রবারই ধৃত আইপিএসের তথাকথিত ‘রাজনৈতিক গুরু’ মুকুল রায় কে তলব করা হয় মুখোমুখি জেরার জন্য। পূর্ব নির্ধারিত রাজনৈতিক কর্মসূচির দোহাই দিয়ে শুক্রবারের জেরা এড়িয়েছেন মুকুল রায়।তবে শনিবার মুকুল বাবু কে আসতেই হবে সিবিআইয়ের অফিসে। সিবিআই সুত্রে প্রকাশ, ‘পূর্ব বর্ধমান জেলার পুলিশ সুপার পদে থাকাকালীন (২০১৩ -২০১৪) মির্জা কিভাবে ব্যবসায়ী – নেতা – মন্ত্রীদের হয়ে ঘুষ নিতেন, তা জানতে চাওয়া হবে ‘। আর এতেই রাতের ঘুম হারাম হয়ে গেছে বর্ধমানের বেশ কয়েকজন বড় ব্যবসায়ী, প্রাক্তন কাউন্সিলার সহ বিধায়ক – মন্ত্রীদের। বর্ধমান জেলায় এক মন্ত্রী আছেন। যিনি বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ম্যাচিং ড্রেস পড়ে হাজির হন। মাঝেমধ্যে আবার যাত্রা নাটকও করেন! এই মন্ত্রীর কথা নারদা স্টিং নিউজে প্রাক্তন পুলিশ সুপার কে বলতেও দেখা গেছে।

বিস্তারিত আসছে …….

Leave a Reply

Your email address will not be published.