পশ্চিম মেদিনীপুরের হাবিবপুরে বিদ্যাসাগরের দুশোতম জন্মবার্ষিকী

প্রশাসন

জুলফিকার আলি

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের জন্মদ্বিশত বার্ষিকীতে শ্রদ্ধা ও স্মরণে নানান কর্মসূচি পালন করলো পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার হবিবপুর সরস্বতী বিদ্যামন্দির হাইস্কুলের ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষক শিক্ষিকারা।
সূচনা হয়েছিল গত শুক্রবার। ওই দিন বিদ্যাসাগরের প্রতিকৃতিতে ফুলের মালা দিয়ে শ্রদ্ধা জানান স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা মালা মজুমদার। আর ছাত্রছাত্রীরা অংশ নেয় বসেআঁকো প্রতিযোগিতায়। অঙ্কনের বিষয় ছিল বিদ্যাসাগরের প্রতিকৃতি। শনিবার হয় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা।সোমবার ছিল প্রবন্ধ প্রতিযোগিতা। প্রবন্ধের বিষয় ছিল ‘নারী শিক্ষায় বিদ্যাসাগরের ভূমিকা ‘ ও ‘সমাজসংস্কারক বিদ্যাসাগর’। বুধবার ছিল ছাত্রছাত্রীদের ফুটবল ম্যাচ। বৃহস্পতিবার তথা ২৬ সেপ্টেম্বর ছিল মূল অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানের মূল বক্তা ছিলেন মেদিনীপুর কলেজের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক অমর সাহা। তাঁর বক্তব্যে উঠে আসে বিদ্যাসাগর আজও কেন প্রাসঙ্গিক। বিদ্যালয়ের উদ্যোগে প্রকাশ পায় বিদ্যাসাগরের জীবন ও কর্মজীবন নিয়ে স্মারক কার্ড। অনুষ্ঠানে ছাত্রছাত্রীদের জন্য সংবাদপত্র পাঠের জন্য একটি টেবিল-স্ট্যান্ডের উদবোধন করেন অধ্যাপক অমর সাহা। প্রধান শিক্ষিকা মালা মজুমদার জানান, “যথেষ্ট গুরুত্ব সহকারে আমরা বিদ্যাসাগর নিয়ে চর্চা করলাম। তবে এ চর্চা কেবল দু-চার দিনের জন্য করলেই হবে না, সারা জীবনই করে যেতে হবে।”

Leave a Reply

Your email address will not be published.