প্রশাসন

মাধ্যমিকে মার্কশীট এর সাথে চারাগাছ বিলি

সুভাষ মজুমদার

বহুদিন বাদ পঠনপাঠন সম্পর্কিত একটা কর্মদিবস পাওয়া গেল সংশ্লিষ্ট অভিভাবকদের মাধ্যমিকের মার্কশিট ও সার্টিফিকেট প্রদানের মধ্য দিয়ে। যদিও শিক্ষার্থীদের সরাসরি সংস্পর্শ বা সংস্রবে আসা যায়নি, তবুও আজকের দিনের তাৎপর্য এই করোনা কালে অতীব গুরুত্বপূর্ণ বৈকি! শিক্ষার্থীদের জীবনের প্রথম সর্ববঙ্গীয় পরীক্ষার ফলাফল তাদের মুখের সামনে যে দর্পণ তুলে ধরেছে সেই দর্পণে তাদের মুখের অভিব্যক্তি কিরকম ফুটে উঠেছে, সেটা চাক্ষুষ করার অভিজ্ঞতা থেকে তামাম শিক্ষককুল বঞ্চিত। তাদের সাফল্য ব্যর্থতার সমব্যথী বা শরিক হতে না পারার যন্ত্রনা শিক্ষক-শিক্ষার্থী উভয়ের পক্ষেই শুধু অনভিপ্রেত নয় অনির্বচনীয়ও বটে।

তার মধ্যেই আমরা চেষ্টা করেছি শিক্ষার্থীদের আরো কাছে পৌঁছাতে, একটু অন্য ভাবে। এ বছর বিদ্যালয়গুলিতে শিক্ষার্থীরা বিশ্ব পরিবেশ দিবস (5 ই জুন), অরণ্য সপ্তাহ পালন করোনার করাল গ্রাসবন্দি হওয়ায় এই দিবস গুলির মাহাত্ম্য অনুধাবন করতে পারেনি। সেইজন্য আমরা আজকের দিনটাকে বেছে নিয়েছিলাম শিক্ষক-শিক্ষার্থী-অভিভাবকের মেলবন্ধনে পরিবেশে সামান্য একটু হলেও সবুজের গাঢ়ত্ব যাতে বাড়ে; সেই পথের শরিক হওয়ার।

আজ সংশ্লিষ্ট অভিভাবকদের হাতে মাধ্যমিকের মার্কশিট ও সার্টিফিকেট প্রদানের সঙ্গে সঙ্গে একটি করে শিশু শালের চারা তুলে দিয়েছি। সেইসঙ্গে ঐ অভিভাবকদের হাতে দিয়েছি বৃক্ষরোপণের পরবর্তী চারাগাছ বৃদ্ধি সংক্রান্ত ত্রৈমাসিক নিরীক্ষাপত্র, যাতে শিক্ষার্থীরা খুব মনোযোগের সঙ্গে গাছের বৃদ্ধি নিরীক্ষণ করে একজন সত্যিকারের বৃক্ষপ্রেমীর সঙ্গে সঙ্গে প্রকৃতিপ্রেমিও হয়ে ওঠে। যেহেতু মাধ্যমিক পাস শিক্ষার্থীদের জনা পাঁচ ছয়েক বাদ দিয়ে বাকি সবাই এই প্রতিষ্ঠানেই ভর্তি হবে সেহেতু তিন মাস অন্তর ঐ নিরীক্ষা পত্র এই প্রতিষ্ঠানে জমা করারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

শিক্ষার্থীরা এই কোরোনা কালে গৃহবন্দি না থেকে শিশু শালের চারা পরিচর্যা করুক নিজ গৃহ পরিবেশে – গৃহে নজর বন্দির একঘেঁয়েমিকে সপাটে ত্রিসীমানার ওপর দিয়ে ওভার বাউন্ডারি হাঁকাক। গৃহে উচ্চতর শ্রেণীর পড়াশোনা করার পাশাপাশি হতে কলমে প্রকৃতি পাঠের পরিচর্যা করুক – এই কামনায়। যদিও করোনা করোনা করে পরিবেশ নিয়ে চিন্তাভাবনা এখন অনেকটাই ব্যাকফুটে; তাই এটি আমাদের এক অতি সূক্ষ্ম প্রচেষ্টা।

এই অনুষ্ঠানটি সার্থক করে তোলার জন্য কৃতজ্ঞতা জানাই উপস্থিত সহকর্মিবৃন্দ, ভাদুর ফরেস্টের বিট অফিসার শুভঙ্কর সিকদার ও অনিকেৎ মুখার্জিকে (সচিব সেভ ট্রি সেভ লাইফ)।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *