কলেজ পড়ুয়াদের থ্যালাসেমিয়া পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করলো রাজ্য সরকার

প্রশাসন

শ্যামল রায় কালনা,


কলেজে ভর্তির সময় থ্যালাসেমিয়া পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করতে চাইছেন রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর। ইতিমধ্যে কালনা কলেজে এই নিয়ম কার্যকর হতে চলছে। তবে কলেজ কর্তৃপক্ষের দাবি সকলের উদ্যোগ দরকার এ সম্পর্কে পড়ুয়াদের ও সচেতন থাকতে হবে।
কলেজের অধ্যক্ষ তাপস সামন্ত জানিয়েছেন যে কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের থ্যালাসেমিয়া পরীক্ষা না করতে পারার মূল কারণ হচ্ছে সময়ের অভাব।১লা  জুলাই থেকে কলেজের সেশন শুরু হয়ে গেছে এখনো ভর্তি পরীক্ষা শেষ করা যায় না তাই মাঝে মধ্যেই আমরা থালাসেমিয়া টেস্ট করার উদ্যোগ গ্রহণ করি এবং পরীক্ষা সে সে এবং ভর্তি প্রক্রিয়া শেষ হলেই আমরা আবার টেস্ট করা হবে ছাত্রছাত্রীদের।
কালনা মহকুমা হাসপাতাল ব্লাড ব্যাংক এ রক্তের চাহিদা বড় অংশই থেলাসেমিয়া আক্রান্ত রা।
কালনা মহকুমা হাসপাতালে রক্তদান শিবিরের উদ্যোক্তাদের প্রশিক্ষণ শিবিরে জেলার ডেপুটি সুনেত্রা মজুমদার জানিয়েছিলেন কালনা থেকে প্রচুর থ্যালাসেমিয়া রোগী বর্ধমানের যায় তাদের যাতায়াতে বেশ খানিকটা সময় নষ্ট হয়ে যায় যারা স্কুলপড়ুয়া আছেন তাদের স্কুল কামাই হয়ে যায় তাই হাসপাতালে সেপারেশন ইউনিট গড়ে তোলার প্রক্রিয়া শুরু হয় এবং কলেজে ভর্তির সময় থালাসেমিয়া পরীক্ষা আবশ্যক।
প্রত্যেক বিদ্যালয়ে থ্যালাসেমিয়া নিয়ে সচেতনতামূলক প্রোগ্রাম করা হবে প্রথমে অভিভাবক ও শিক্ষকদের মধ্যে এই নিয়ে সচেতনতা গড়ে তোলা হবে এবং থালাসেমিয়া পরীক্ষা করা হবে।
ইতিমধ্যে কালনা মহকুমা হাসপাতালে থালাসেমিয়া নিয়ে অভিভাবক অভিভাবিকা ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে একটি শিবির ও শেষ হয়েছে।
ইতিমধ্যে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ও কালনার বেশ কয়েকটি স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের থালাসেমিয়া পরীক্ষা শুরু করে দিয়েছে
সংস্থার অন্যতম কর্ণধার নরেশ দাস জানিয়েছেন যে থ্যালাসেমিয়া বাহক না আপাতত ভাবে সম্পূর্ণ সুস্থ এবং সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হন কেবলমাত্র বিশেষ রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে চিহ্নিত হন একজন আর একজনকে বিয়ে না করে তার জন্য বিয়ের আগে রক্ত পরীক্ষা করে জেনে নিতে হবে তারা বাহক কি না। তবে আমরা সচেতনতামূলক নানান ধরনের অনুষ্ঠান করে থাকি ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.