পুলিশ

সিবিআইয়ের গরুপাচার মামলায় কি আসতে পারে পুরন্দপুর – পাচুন্ডির নাম?

এস.ঘোষ

একুশের বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে কেন্দ্রীয় এজেন্সিগুলির বিরুদ্ধে অতি সক্রিয়তার অভিযোগ এই রাজ্যের শাসক দলের। সিবিআই কিংবা এনআইএ, ইডি কিংবা অন্য কোন সংস্থা। ইতিমধ্যেই বাংলার বেশিরভাগ ঘটনার ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় খবরদারী চলছে বড্ড বেশি। এই খবরদারীর বেড়াজালে গরু পাচার চক্রে সিবিআইয়ের হস্তক্ষেপ ক্রমশ ভাবাচ্ছে শাসক দলের বেশকিছু নেতা সহ পুলিশের একাংশদের কে। বিএসএফের ভুমিকা নিয়ে রীতিমতো সিরিয়াস তদন্তে সিবিআই। তবে মূল লক্ষ্য টা যে আলাদা, তা অনেকেই এখন থেকে টের পাচ্ছে। সিবিআই অবশ্য নিরপেক্ষতা বজায় রাখার দাবি সর্বদা করে থাকে।অভিযোগ, দক্ষিণবঙ্গের গরুপাচার চক্রের জায়গা গুলির মধ্যে বীরভূমের পুরন্দপুর,কেতুগ্রামের পাচুন্দির নাম সবার উপরে উঠে আসে। পুরন্দপুর ফুটিসাঁকো সড়কপথে কখনো চারচাকায় আবার কখনো পাইকেরদের হাঁটা পথে গরুর দলদের নিয়ে যেতে দেখা যায়। সম্প্রতি বীরভূমে একটি কনটেনারে চাপাচাপি করে গরু আনতে গিয়ে দমবন্ধ হয়ে মারা পরে বেশ কিছু গরু। এক পুলিশ কর্তা প্রাইজ পোস্টিং নিয়ে বীরভূমে গেলে তাঁর পুরন্দপুর সহ বেশ কয়েক জায়গায় অভিযান গরু পাচার চক্রের সিন্ডিকেটদের মাথাব্যর্থার কারণ হয়ে উঠে। এইরুপ অভিযানের কিছু সময়ের মধ্যেই তিনি গ্যারেজ পোস্টিং পেয়ে যান। যদিও পুলিশের তরফে সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। পুরন্দপুরের এই ঘটনা টি সহ বেশকিছু ঘটনা সিবিআইয়ের নজরে এসেছে বলে বিশস্ত সুত্রে প্রকাশ। গরুপাচার কান্ডে কেতুগ্রামের পাচুন্ডি হাটের ভূমিকা সর্বাপেক্ষা গুরত্বপূর্ণ বলে ওয়াকিবহাল মহল মনে করছে।

বিস্তারিত আসছে……

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *