পটাশপুরে চোলাই মদের রমরমা

পুলিশ

জুলফিকার আলি,

প্রতিনিয়ত রমরমিয়ে চলছে অবৈধ চোলাই মদের ব্যবসা। আর সেই মদ খেয়ে প্রতিদিন গ্রামের পুরুষরা বাড়ির মহিলাদের উপর শারীরিক নির্যাতন ও অত্যাচার করছে বলে অভিযোগ। এই ঘটনার প্রতিবাদে এ দিন এলাকার মহিলারা একত্রিত হয়ে স্থানীয় এলাকার বাসিন্দা ময়না ঘড়োই স্বামী ঝাঁপু ঘড়োই বাড়ি থেকে মদের বোতল উদ্ধার করে।ঘটনাটি পূর্ব মেদিনীপুর জেলার পটাশপুর -১ ব্লকের তাপিনদা বাসস্ট্যান্ডের কাছে।পাশাপাশি এ দিন এলাকার মহিলারা ও পটাশপুর থানার পুলিশ মিলে স্থানীয় ডাক্তারের (বিশ্বরঞ্জন পাত্রের ) চেম্বার থেকে চোলাই মদ উদ্ধার করেছে বলে জানা গিয়েছে।
ঘটনার পরে মহিলারা মদ উদ্ধার করে‌ রাস্তায় ফেলে ঘন্টাখানেক পথ অবরোধ করে। ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে দ্রূত আসে পটাশপুর থানার পুলিশ এসে বেশ কয়েক লিটার চোলাই মদ-সহ মদ ব্যবসায়ী ময়না ঘড়োই ও ডাক্তার বিশ্বরঞ্জন পাত্রকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।তবে ঘটনার তদন্তে শুরু করেছে পটাশপুর থানার পুলিশ।স্থানীয় মহিলাদের আরও অভিযোগ, বহিরাগতরা মদ্যপান করে বাড়িতে ঢুকে পড়ছে। এই অবৈধ চোলাই মদের দোকান গড়ে ওঠায় এলাকার মানুষ চরম অত্যাচারিত।এলাকার এক মহিলা এর প্রতিবাদ জানাতে গেলে মদের ব্যাবসায়ী তাকে মারধর করে বলে অভিযোগ। পুলিশের কাছে অভিযোগ করেও কোন লাভ হয়নি।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মহিলার দাবি, পুলিশ তো মোটা টাকা মাসোহারা নেয়।গ্রামের সুস্থ-সামাজিক পরিবেশকে নষ্ট করছে। তাই আজকের এই পদক্ষেপ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.