বধূ কে পিটিয়ে মারার অভিযোগ, উত্তপ্ত জয়নগর

পুলিশ


উজ্জ্বল বন্দ্যোপাধ্যায়,জয়নগর : গত ছয় মাস আগে জয়নগর থানার উওর দুর্গাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ফতেপুর গ্রামের বাসিন্দা সেলিমা মণ্ডলের সঙ্গে দেখাশোনা করে বিয়ে হয়েছিল বহরু ক্ষেএ গ্রাম পঞ্চায়েতের শানপুকুর গ্রামের বাসিন্দা জয়নাল গাজীর। জয়নাল পেশায় রাজমিস্ত্রি। বিয়ের পরেই সেলিমার বাপের বাড়ির লোকজন জানতে পারে জয়নাল এর আরো একজন স্ত্রী আছে। সেলিমা মন্ডলের বাড়ির লোকের চাপে পড়ে জয়নাল প্রথম পক্ষের স্ত্রী কে অন্যত্র রাখতে বাধ্য হয়। কিন্তু সেলিমার সঙ্গে অশান্তি ক্রমশ বাড়তেই থাকে। যখন তখন শেলিমার বাপের বাড়ি থেকে মোটা অংকের টাকা আনার জন্য চাপ দিতে থাকে জয়নাল। মঙ্গলবার ও সংসারের নানান বিষয় নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে সকাল থেকেই তুমুল ঝগড়া হয়। গভীর রাতে সেলিমার বাপের বাড়িতে খবর দেওয়া হয় যে সেলিমা গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু সেলিমার বাড়ির লোকজন এসে দেখে সেলিমার নিথর দেহ মেঝেতে পড়ে আছে । তাঁরা বুঝতে পারে তাদের মেয়েকে পিটিয়ে খুন করা হয়েছে। এই ঘটনা জানাজানি হতেই এলাকার মানুষ উত্তেজিত হয়ে জয়নালের বাড়ি-ঘর,আসবাব পএ সহ সব কিছু ভাঙচুর করে। উত্তেজিত জনতার হাত থেকে বাঁচতে জয়নাল ও তাঁর পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায়। খবর দেওয়া হয় জয়নগর থানায়। ঘটনাস্থলে পৌঁছায় জয়নগর থানার পুলিশ এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে স্তানীয় পদ্মেরহাট গ্রামীন হাসপাতালে পাঠায়।সেখান থেকে মৃতদেহ ময়না তদন্তে পাঠায় পুলিশ। মৃত গৃহবধূর বাপের বাড়ির লোকের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছে জয়নগর থানার পুলিশ। এ ব্যাপারে মৃতার ভাশুর সাদ্দাম গাজীকে আটক করেছে পুলিশ।বাকী দের খোঁজে তল্লাশি চলছে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেল।

Leave a Reply

Your email address will not be published.