কেস্টর জেলায় বেহাত তৃনমূলী পঞ্চায়েত

রাজনীতি

ফের অনুব্রত গড়ে তৃণমূলের হাতছাড়া পঞ্চায়েত।

বীরভূমের দু’নম্বর ব্লকের কোমা গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান উপপ্রধান ও 5 জন মেম্বার সহ বিজেপিতে যোগদান। 7 আসন বিশিষ্ট এই পঞ্চায়েতের 5 জন বিজেপিতে যোগদান করায় তৃণমূলের হাতছাড়া হলো পঞ্চায়েত, দখল নিল বিজেপি। এ দিন বিজেপির জেলা সভাপতি শ্যামা প্রসাদ মন্ডল এর হাত ধরে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপি পতাকা তুলে দিলেন পঞ্চায়েতের প্রধান উপপ্রধান সহ 5 জন মেম্বার।

যোগদান শেষে পঞ্চায়েতের প্রধান ঝরনা বাগদী জানান, দম বন্ধ হয়ে আসছিল কাজ করতে পারছিলাম না। সমস্তটাই নিয়ন্ত্রণ করছিল উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ। মানুষের জন্য কাজ না করতে পাড়াতেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেছি।

পাশাপাশি যোগদান অনুষ্ঠানে এসে জেলা সভাপতি শ্যামা প্রসাদ মন্ডল বীরভূম জেলায় সন্ত্রাসের রাজত্ব চলছে। ভারতীয় জনতা পার্টির ছেলেরা বোম বারুদের বিশ্বাসই করে না।

গতকাল থেকেই আজ অব্দি বীরভূম জেলার বেশ কয়েকটি জায়গায় উদ্ধার হয়েছে গ্রেপ্তার করা হয়েছে 463 জন কে এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন কুড়ি বাইশ নয় 22000 বোম বীরভূম থেকে পাওয়া যাবে। পাশাপাশি তিনি পুলিশ প্রশাসনকে উদ্দেশ্য করে বলেন তাদেরকে যদি নিরপেক্ষভাবে কাজ করতে দেওয়া হয় তাতে যদি বিজেপির বাড়ি থেকে বোমা উদ্ধার হয় তাহলেও হবে, যদি তৃণমূলের বাড়ি থেকে বোমা উদ্ধার হয় তাহলে হবে। পুলিশ প্রশাসনকে দুদিন সঠিকভাবে কাজ করতে দিন তাহলেই বুঝতে পারবেন কাদের বাড়ি থেকে কত বোম উদ্ধার হচ্ছে। তিনি আরো বলেন পুলিশ প্রশাসন তৃণমূলের হয়ে কাজ করছে, তৃণমূল কংগ্রেসের বাড়িতে বোমা উদ্ধার হলেও গ্রেপ্তার করা হচ্ছে বিজেপি কর্মীকে। বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেস বারুদের স্তুপ করে রেখেছে বলেও জানান। তিনি আরো জানান কিছু পুলিশ অফিসার এতে মদদ দিচ্ছে, তাদেরকে আমরা তৃণমূলের পাচাটা পুলিশ বলবো। যদি পুলিশ প্রশাসন সঠিক সিদ্ধান্ত না নেয় তাহলে ছয় মাসের মধ্যে সেই পুলিশকে আমরা সবক শেখাব।

Leave a Reply

Your email address will not be published.