বোমায় জখম সেই সেচকর্মী মারা গেলেন

পুলিশ

চোখের জলে চির বিদায় নিলো বোমার আঘাতে আহত সেচ কর্মী আলম

মানস দাস,মালদা : ১২ দিন লড়াই এর পর মৃত্যর কাছে হার মানল বোমার আঘাতে আহত সেচ কর্মী আলম সেখ। দুষ্কৃতীদের ছোড়া বোমার আঘাতে আহত সেচ কর্মী মোহাম্মদ আলম শেখের মৃত্যু হয় বুধবার সকালে।এদিন মহম্মদ আলম বাড়িতে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে দ্রুত স্থানীয় বাঙ্গিটোলা গ্রামীন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে আলমকে নিয়ে যাওয়া হয় । সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয় । আলমের মৃত্যুর খবর জানাজানি হতেই শোকে মুহ্যমান হয়ে পরে গোটা কালিয়াচক দুই নং ব্লকের বাঙ্গীটোলা গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার সাধারণ মানুষ ।গত ১ জুন দুষ্কৃতীদের ছোঁড়া বোমার আঘাতে গুরুতর আহত হন আলম সহ তিন জন।মালদা শহরের একটি বেসরকারি নার্সিং হোমে
অপারেশনও করা হয় আলমের । অবশেষে অনেকটা সুস্থ অবস্থায় হাসপাতাল থেকে ১০ জুন আলমকে ছেড়ে দেয় । কিন্তু বুধবার ফের অসুস্থ হয়ে পড়েন আলম। স্হানীয় বাঙ্গিটোলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে মৃত্যু হয় আলমের । তার মৃত্যুর খবরে কালিয়াচক ২ নম্বর ব্লকের বাঙ্গিটোলা গ্রাম পঞ্চায়েতের আকন্দবাড়িয়া গ্রামে নেমে আসে শোকের ছায়া । এদিন ময়নাতদন্তের জন্য দেহ নিয়ে যাওয়া হয় মালদা মেডিক্যাল কলেজ এন্ড হাসপাতালে। তার মৃত্যুতে শোকের সাগরে কার্যত ভেসে গেল ওই পরিবার বলে
আলমের ভাইপো সফিকুল সেখ জানান । সফিকুল জানান ” নার্সিং হোম থেকে আলমকে দুই দিন আগে রিলিজ দেয়। ও খারাপ আছে জানলে আমারা কলকাতা নিয়ে যেতাম।এটা একটা আফশোস থেকে গেলো ।” এদিন মালদা মেডিকেল কলেজে সেচ দপ্তরের সমস্ত আধিকারিকরা আলমের মৃতদেহকে সম্মান জানানোর জন্য উপস্থিত হয়। সেচ দপ্তরের আধিকারিকরা আলম এর মৃতদেহ মালদা মেডিকেল কলেজ থেকে সেচ দপ্তরের নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে শেষ দপ্তরের সমস্ত আধিকারিকরা আলমকে সম্মান প্রদান করেন।শোকে ভেঙে পরে সেচ দপ্তরের আধিকারিকরা। এদিকে মৃতদেহ বাঙ্গীটোলা নিয়ে গেলে আলমকে দেখতে হাজারো মানুষের ঢল নামে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.