ক্রীড়া সংস্কৃতি

মঙ্গলকোটে ডাক্তারবাবুর চেম্বারে চিকিৎসা করাতে ‘রামভক্ত’ হনুমান

জ্যোতিপ্রকাশ মুখার্জি ,


অন্যান্য দিনের মত ১৭ ই অক্টোবরও সকালে মঙ্গলকোটের নতুনহাটে নিজের চেম্বারে বসে রুগী দেখছিলেন গ্রামীণ ডাক্তার প্রেমানন্দ মুখার্জ্জী। হঠাৎ সবাইকে চমকে দিয়ে একটা বড় হনুমান ঢুকে পড়ে চেম্বারে। ঘটনার আকষ্মিকতায় প্রেমানন্দ বাবু তো বটেই ভয় পেয়ে যান ভিতরে বসে থাকা দুই রুগী। কিন্তু কারও কোনো ক্ষতি না করে হনুমানটি নিজের ক্ষতস্হানের দিকে ডাক্তার বাবুর দৃষ্টি আকর্ষণ করে। দেখা যায় তার বাম পায়ে চোট রয়েছে। ডাক্তারের ডাকে সাড়া দিয়ে হনুমানটি চেম্বারের বাইরের বারান্দায় এসে বসে। সেখানেই শুরু হয় তার চিকিৎসা। সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয় চেম্বারের পাশেই থাকা ইলেকট্রিক মিস্ত্রি ফিরোজ হোসেন (সাণ্টু)। সে পরম মমতায় হনুমানটির গায়ে হাত বুলিয়ে দেয়। প্রায় ১৫ মিনিট ধরে হনুমানটির চিকিৎসা চলে। চিকিৎসার শেষে কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিয়ে ডাক্তারের কাছ থেকে এক প্যাকেট বিস্কুট নিয়ে হনুমানটি ধীরে ধীরে চলে যায়।
ফিরোজ বললেন – ডাক্তার বাবুর পাশেই আমার দোকান। হঠাৎ হনুমানটি চেম্বারে ঢুকে পড়ায় ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম। কিন্তু যেভাবে সে কারও কোনো ক্ষতি না করে নিজের আঘাতের জায়গাগুলো দেখাচ্ছিল তাতে অবাক না হয়ে থাকতে পারিনি।
অন্যদিকে প্রেমানন্দ বাবু বললেন – দীর্ঘদিন ধরে মানুষের চিকিৎসা করলেও এই প্রথম কোনো প্রাণীর চিকিৎসা করলাম।যেভাবে অবলা প্রাণিটি আমার প্রশ্নের উত্তরে নিজের আঘাতের জায়গাগুলো দেখাচ্ছিল তাতে খুব কষ্ট হচ্ছিল। তখন পশু চিকিৎসকদের ভাবনা মাথায় আসেনি। আশাকরি হনুমানটি খুব শীঘ্রই সুস্থ হয়ে উঠবে।
সকালের ব্যস্ত সময়ে হনুমানের চিকিৎসা দেখতে বেশ কিছু ভিড়ও জমে যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *