হাসপাতালের ঔষধ দেওয়ার খামে সেভ ড্রাইভ

ভিডিও

সেখ সামসুদ্দিনঃকিছু কিছু সরকারী হাসপাতালের আউটডোরে ডাক্তার দেখানোর পর যখন ওষুধ দেয় তা কোনো খামে না দিয়ে হাতে দেয়, ও মুখে বলে দেয় কখন কোনটা খেতে হবে, অনেক সময় ৫-৬ রকমের ওষুধ থাকলে রোগিরা গুলিয়ে ফেলে কোনটা কখন খাবে, তাই তার জন্য পাল্লা পল্লীমঙ্গল সমিতির উদ্যোগে পাল্লা রোড ও বড়শুলের দুটি হাসপাতালের আউটডোরের রোগিদের জন্য খামের ব্যবস্থা করা হয় বলে জানান পল্লীমঙ্গলের সম্পাদক। তিনি আরও জানান মাসে খাম লাগবে প্রায় ২২০০০ পিস , খরচ আনুমানিক মাসিক ৩০০০টাকা। এই খামের একটা বিশেষত্ত আছে, যেটা হল প্রত্যেক খামের গায়ে লেখা থাকছে ট্রাফিক সচেতনতার বার্তা, দিনে যতবার সে ওষুধ খাবে তার চোখে পড়বে এই সচেতনতা বার্তা। পল্লীমঙ্গলের আশা এই প্রচেষ্টা ট্রাফিক সচেতনতা প্রচারে খুবই কার্যকর হবে, পৌছানো যাবে সর্বস্তরে দৈনিক আনুমানিক ১০০০ মানুষের কাছে ট্রাফিক সচেতনতার বার্তা নিয়ে
অন্যধরণের এই সচেতন তার প্রচেষ্টা কতটা সফল হয়, তা সময় বলবে। মানুষের নিত্যদিনের সমস্যার সমাধানেরর সাথে সাথে ট্রাফিক সচেতনতা প্রচার চলুক একইসাথে।
আজ এই প্রচেষ্টার শুভারম্ভ হল পাল্লা রোড প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ও বড়শুল ব্লক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে,
এছাড়াও ৭টি রোড ব্যারিকেডেরও উদ্বোধন করা হয়, এইগুলি তৈরী করা হয়েছে পল্লীমঙ্গল সমিতির ফান্ড থেকে, পাল্লা রোড রাস্তায় একটি ট্রাফিক সচেতনতার প্রচার ক্যাম্পও করা হয়। উপস্থিত ছিলেন মাননীয় এসডিপিও সাউথ শৌভনিক মুখোপাধ্যায়, ডেপুটি এসপি (ট্রাফিক) সুকান্ত হাজরা, ডেপুটি এসপি (হেডকোয়ার্টার) শৌভিক পাত্র, সার্কেল ইন্সপেক্টর শ্যামল চক্রবর্তী, পাল্লা রোডের মেডিকেল অফিসার অঙ্কন সাঁই, বড়শুলের বিএমওএইচ অঞ্জন মুখার্জী সহ ক্লাব সদস্য ও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.