বড় বিপদ থেকে বাঁচলো মঙ্গলকোটের নুতনহাট

পুলিশ

বড় দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেল মঙ্গলকোট 

মোল্লা জসিমউদ্দিন , 

বেলা তখন সাড়ে নটা, মঙ্গলকোটের নুতনহাট বাইপাসে এক বড় দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেল এলাকাবাসী। যাত্রীবাহী বাস এবং তেলভর্তি ট্রাঙ্কারের মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটতে পারতো। দুটি গাড়ীর গতিবেগ ছিল চল্লিশ কিমির মত। ভাগ্যক্রমে রক্ষা পেল ওই সড়ক মোড় চত্বর । এই প্রতিবেদক  ঘটনার সময় দাঁড়িয়ে ছিলেন ঘটনাস্থলে। পেছনে গোটা দশেক তেলের ট্যাঙ্কার ছিল। তাই যাত্রীবাহী বাস এবং সামনে থাকা তেলের ট্যাঙ্কার গাড়ী দুটিতে মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটলে বিস্ফোরণ ঘটতেও পারত। স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, ৭ নং রাজ্য সড়ক টি মঙ্গলকোটের উপর দিয়ে গেছে। উত্তরবঙ্গ ও দক্ষিণবঙ্গ এর শর্ট রুট এটি। তাই প্রতিদিনই হাজারের কাছাকাছি যানবাহন যাতায়াত করে থাকে মঙ্গলকোটের নুতনহাট বাইপাস ধরে। আজ সকাল সাড়ে নটার সময় নুতনহাট পীড়তলা বাসস্ট্যান্ড থেকে আসা সিউড়ি গামী এক যাত্রীবাহী বাস হাইস্কুল মোড় থেকে চল্লিশ কিমি বেগে লোচনদাস সেতুর দিকে যাচ্ছিল। সেইমত অবস্থায় উল্টো দিক করে আসা গোটা দশেক তেলের ট্যাঙ্কার বর্ধমান সড়ক রুটে যাচ্ছিল। ওই মোড়টিতে হাম্পার না বুঝতে পারায় সামনে থাকা তেলের ট্যাঙ্কার টি যাত্রীবাহী বাসের দশ ফুটের মধ্যেই চলে আসে। বাসের চালক দ্রুত ব্রেক কষায়  এবং মূল রাস্তা থেকে মাটিতে নেমে পড়ায় দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা মিললো বলে প্রতক্ষদর্শীরা জানাচ্ছেন। এই ব্যস্ততম সড়ক মোড়ে মঙ্গলকোট থানার পুলিশ কর্মী না থাকায় তীব্র ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। এখানে রাস্তার ধারেই রয়েছে একটি উউচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়। অভিভাবকরা এই ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে ট্রাফিক পুলিশের দাবিতে সরব হয়েছেন।অপরদিকে এই ঘটনাস্থল থেকে পাঁচশো মিটারের মধ্যেই লোচনদাস সেতুর পালিতপুর মোড়ে দাঁড়িয়ে থাকা এক লরি কে পাশ কাটাতে গিয়ে এক যাত্রীবাহী বাস দুর্ঘটনা ঘটায়।সেখানে এক যাত্রী জানালায় হাতের কুনুই রাখায় সেটে কেটে রাস্তায় পড়ে যায়। এই ঘটনা ঘিরে তীব্র চাঞ্চল্য পড়েছে।                                                                                                    

Leave a Reply

Your email address will not be published.