ঝাড়খণ্ড পুলিশে আস্থা নেই, তাই আবার দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্ত

পুলিশ

সুদিন মন্ডল,

ভিন রাজ্যের পুলিশের ময়না তদন্তে সন্তুষ্ট না হওয়ায় মৃতের পরিবারের অনুরোধ মেনে পুনরায় ময়না তদন্তের জন্য কবর থেকে দ্বিতীয়বারের জন্য তোলা হলো মৃতদেহ। ভাতারের আলিনগর এলাকার ঘটনা।এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে আলিনগরের নুরাই মল্লিক নামে এক ব্যক্তি গত 21 শে ফেব্রুয়ারি আলিনগর এলাকা থেকে অপহৃত হন। এ বিষয়ে পরিবারের পক্ষ থেকে ভাতার থানায় অভিযোগ করা হয়! ঝাড়খণ্ডের ব্যবসায়ী শওকত আলী ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে অপহরণের অভিযোগ জমা পড়ে! 27 শে ফেব্রুয়ারি ঝাড়খণ্ডের ভাগীরথী নদীতে একটি মৃতদেহ ভাসতে দেখা যায়।ঝাড়খন্ড এর পুলিশ পরিচয়হীন মৃতদেহটিকে ময়নাতদন্তের পর কবর দেওয়ার ব্যবস্থা করেছিল । পরিবারের লোকেরা পোশাক-পরিচ্ছদ দেখে শনাক্ত করে মৃত নুরাই মল্লিক কে! এর পর মৃতদেহ কবর থেকে তুলে আলিনগর এসে পুনরায় কবর দেয়া হয়। কিন্তু ঝাড়খণ্ডের ময়না তদন্তের যে রিপোর্ট আসে তাতে সন্তুষ্ট না হয়ে নুরাই মল্লিকের স্ত্রী রোকসানা বেগম ভাতার থানায় পুনরায় ময়না তদন্তের আর্জি জানান।সেই আর্জি মেনে দুপুর বারোটা নাগাদ এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ভাতার ব্লকের বিডিও শুভ্র চট্টোপাধ্যায় ও ভাতার থানার পুলিশ আধিকারিক প্রণব বন্দ্যোপাধ্যায় এর উপস্থিতিতে পুনরায় মৃতদেহ কবর থেকে তোলা হয় এবং ময়নাতদন্তের জন্য বর্ধমান পাঠানো হয়। মৃতের স্ত্রী রুপসোনা বেগম দাবি করেছেন তার স্বামীকে খুন করাই হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.