বাঁকুড়ায় অনাবাসিক শরীর শিক্ষা শিবির হল

ক্রীড়া সংস্কৃতি

সাধন মন্ডল,

বাঁকুড়া জেলা জাতীয় ক্রীড়া ও শক্তি সংঘের পরিচালনায় বাঁকুড়া গার্লস প্রাথমিক বিদ্যালয়ের -ছাত্রীদের নিয়ে পাঁচ দিনের অনাবাসিক শরীর শিক্ষা শিবির শেষ হল আজ বাঁকুড়ার মিউনিসিপালিটি হাই স্কুলের মাঠে। এই অনাবাসিক প্রশিক্ষণ শিবিরে ১৬৫ জন ছাত্রী অংশ নিয়েছিল। পাঁচ দিন ধরে তারা কাবাডি, জিমন্যাসটিকস,লোক নৃত্য,খোখো,এথ্যালেটিক্স,প্রভৃতি বিষয়ে প্রশিক্ষণ নেয়।আজ অভিপ্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হলো। সমাপ্তি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাঁকুড়া পৌরসভার পৌর প্রধান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্ত, বাঁকুড়া জেলা পুলিশের ট্রাফিক অফিসার, মিউনিসিপাল হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক, ডাঃ অমিতাভ চট্টরাজ সহ বিশিষ্ট ব্যক্তিরা। শিবির সম্পর্কে বলতে গিয়ে বাঁকুড়া গার্লস প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দিনবন্ধু বিদ্যাভূষণ বলেন শহরের ছেলে মেয়েরা পড়াশোনার চাপে খেলাধুলার দিকটা প্রায় ভুলেই গেছে, আমরা পড়াশোনার মাঝে এরকম একটা শিবির করার পরিকল্পনা নিয়েছিলাম। জাতীয় ক্রীড়া শক্তিসংঘের সহযোগিতায় সেটি করতে পেরে ছেলেমেয়েদের মধ্যে পড়াশোনার সাথে সাথে খেলাধুলার চর্চা টা তাদের মনের মধ্যে ঢুকিয়ে দেওয়া হল। আগামী দিনে যাতে এই শিশুরা পড়াশোনার সাথে খেলাতেও পারদর্শী হয় এটাই এই শিবিরের মূল উদ্দেশ্য। পৌর প্রধান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্ত বলেন শিবিরের এই ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের দেখে ছোটবেলায় আমারও এরকম শিবির করার কথা মনে পড়ছে। এই জাতীয় ক্রীড়া শক্তি সংঘে আমিও একদিন শিবির করেছিলাম। শিবির এর গুরুত্ব উপস্থিত দর্শক ও ছেলেমেয়েদের জানান। পাঁচ দিনের এই শিবিরে বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষক হিসাবে ছিলেন দেবাশিস দত্ত, সুজাতা রজক, পম্পা গরাই, সব্যসাচী ঘোষ কাঞ্চন চক্রবর্তী, সন্তোষ চক্রবর্তী, প্রমুখ।কর্মকর্তাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন দিলীপ দত্ত সৌরভ বসু কল্যাণ প্রসাদ কর্মকার প্রমুখ। শিবির সম্পর্কে জাতীয় ক্রীড়া সংঘের সাধারণ সম্পাদক রবিন মন্ডল বলেন আমরা প্রতিবছরই অনাবাসিক শিবির করে থাকি তবে তা একটু বড় ছেলে মেয়েদের নিয়ে। এ বছরই এরকম ছোট ছোট মেয়েদের নিয়ে শিবির প্রথম। যেদিন প্রথম এই শিবির শুরু করেছিলাম সেদিনশিবিরে আসা শিশুরা এতটা শৃংখলাবদ্ধ ছিল না। পাঁচ দিন পর আজকে দেখছি এরা যথেষ্ট শৃংখলাবদ্ধ এটাকে যদি ওরা ধরে রাখতে পারে তাহলে আগামী দিনে এদের মধ্যে থেকে ভালো খেলোয়াড় বেরিয়ে আসবে বলে আমার বিশ্বাস। কার্যকরী সম্পাদক দেবাশীষ দত্ত বলেন আমরা এইরকম শিবিরের মধ্য দিয়ে আগামী দিনে খেলোয়াড় গড়ে তুলবো, সকলের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.