বেঙ্গালুরুতে ১৩ হাজার মানুষদের বাংলাদেশী তকমার বিরুদ্ধে সিপিএমের বঙ্গ সম্পাদক

রাজনীতি

সাজাহান বাদশা,

বেঙ্গালুরু শহরের মারাটহাল্লির বস্তিতে বসবাসরত প্রায় ১৩ হাজার মানুষকে উচ্ছেদের চেষ্টা চলছে। এঁদের ‘বাংলাদেশী’ তকমা দিয়ে ও বস্তি অঞ্চল আবর্জনাময় এই অজুহাত তুলে উচ্ছেদের অভিযান চালানো হচ্ছে। এঁদের বড় অংশই বাঙালি, পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া, মুর্শিদাবাদের মতো জেলা থেকে গিয়েছেন। রুটি-রুজির তাগিদেই তাঁরা সেখানে রয়েছেন। দীর্ঘদিন ধরেই রয়েছেন। বস্তি উচ্ছেদের জন্য বেঙ্গালুরু পৌর নিগম কর্তৃপক্ষ পুলিশ নিয়েই হাজির হয়েছিল। বস্তিবাসীদের তীব্র প্রতিরোধের মুখে তারা সোমবার সাময়িক ভাবে পিছু হঠে। কর্ণাটক রাজ্য প্রশাসন যাতে এই উচ্ছেদ আটকায় সেই লক্ষ্যে সি পি আই (এম) সাংসদ মহম্মদ সেলিম দ্রুত হস্তক্ষেপ করেন। বস্তিবাসীদের উচ্ছেদের জন্য পৌর কর্তৃপক্ষ তিনদিন সময় দিলেও মঙ্গলবার আদালত এক সপ্তাহের সময় দিয়েছে। আদালত ওই অঞ্চলে পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখার দায়িত্ব দিয়েছে পৌর নিগমকেই। অন্যদিকে বস্তিতে কেটে দেওয়া বিদ্যুৎ সংযোগ ফিরিয়ে দেওয়া হবে বলে মেয়র প্রতিশ্রুতি দিতে বাধ্য হয়েছেন। সি পি আই (এম) কর্ণাটক রাজ্য কমিটির নেতৃত্ব হস্তক্ষেপ করেন, রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও হস্তক্ষেপ করেছেন। সে-রাজ্যের সি আই টি ইউ, জনবাদী মহিলা সমিতি, কিছু স্বেচ্ছাসেবী ও মানবাধিকার সংগঠন-সহ বিভিন্ন গণ সংগঠন বস্তিবাসীদের পাশে দাঁড়িয়েছে। তাদের ধন্যবাদ।
সি পি আই (এম) পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য কমিটি দাবি করছে, কোনো ভারতীয় নাগরিককে ‘বাংলাদেশী’ তকমা দিয়ে উচ্ছেদ করা যাবে না। বি জে পি যে ঘৃণ্য প্রচার চালাচ্ছে তা বন্ধ করতে হবে। পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য প্রশাসনকে ওই উচ্ছেদ বন্ধ করার জন্য হস্তক্ষেপ করতে হবে, কর্ণাটক রাজ্য সরকারের সঙ্গে অবিলম্বে কথা বলতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.