পার্টি নিয়ে ঘরের অন্দরমহলে বিবাদ, পরিণতি চোখ নষ্ট হওয়ার উপক্রম

রাজনীতি

সৃজন শীল,

দক্ষিণ ২৪ পরগনার নামখানায় এক গৃহবধূর চোখ নষ্ট করে দেওয়ার অভিযোগ। ঘটনায় প্রকাশ গৃহবধূ শ্রীমতি বয়স ৩৬ বাড়িতে দুটি ছেলে মেয়ে নিয়ে থাকে। স্বামী সমরেশ জানা শিলিগুড়িতে ধানের মিলে কাজ করে, তাই কর্মসূত্রে শিলিগুড়িতে থাকতে হয়। শ্বশুরবাড়ির লোকজন সিপিএমের সমর্থক কিন্তু শ্রীমতি জানা এবং তার স্বামী বহু দিন ধরে তৃণমূলের সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত থাকায় সংসারের লোকজন তাদের উপর অত্যাচার করতে বলে জানা যায়। গতকাল এলাকাতে তৃণমূলের ১৯ শে ডিসেম্বরে ব্রিগেডের সমাবেশ উপলক্ষে মিছিল ছিল।সেই মিছিলে শ্রীমতি জানা অংশগ্রহণ করে। কিন্তু মিছিল থেকে বাড়ি ফেরার পর শ্রীমতি জানার দেওর কমলেশ জানা এবং তার স্ত্রী ঝর্না জানা, শ্রীমতি জানা কে মারধোর শুরু করে, তাকে সহযোগিতা করে শ্রীমতি জানার শশুর এবং শাশুড়ি। দেবর কমলেশ জানা চোখের ভিতর আঙ্গুল ঢুকিয়ে দিয়ে চোখ তুলে নেবার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ। স্থানীয় লোকজন দৌড়ে এলে শ্রীমতি জানা কে রাস্হার উপরে ফেলে রেখে অভিযুক্তরা পালিয়ে যায় বলে অভিযোগ। স্থানীয় ব্যক্তিরা নামখানা দ্বারিকনগর গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি করে। কিন্তু রোগীর অবস্থা খারাপ হওয়ায় কাকদ্বীপ মহাকুমা হাসপাতালে স্থানানন্তরিত করা হয়। মেয়ের ভাই কমল সামুই নামখানা থানায় চারজনের নামে অভিযোগ দায়ের করে। থানা আধিকারিক রাজু বিশ্বাস তৎক্ষণাৎ পুলিশ নিয়ে তদন্ত করে দেখেন এবং মূল অভিযুক্ত শ্রীমতি জানার দেওর অমলেশ জানা কে গ্রেফতার করেন। আজ কমলেশ জানা কে কাকদ্বীপ কোর্টে তোলা হলে মহামান্য আদালত ১৪ দিনের জেলহাজতে পাঠান।হাসপাতাল সূত্রে জানা যায় শ্রীমতি জানার চোখের অবস্থা খুবই খারাপ দু এক দিন না কাটলে কিছু বলা যাচ্ছে না। বর্তমানে শ্রীমতি জানা কাকদ্বীপ গ্রামীন হাসপাতালে গুরুতর আহত অবস্থায় ভর্তি আছেন বলে জানা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.