কৈজুড়ি গ্রামে রাজ পরিবারের কালিপুজো

ক্রীড়া সংস্কৃতি

সৈয়দ রেজওয়ানুল হাবিবঃ১৭৪১ সাল-তৎকালিন সময়ে নদীয়ার রাজা ছিলেন কৃষ্ণচন্দ্র রায়, ।রাজা কৃষ্ণচন্দ্র রায়ের নায়েব ছিলেন কামদেব সরদার৷কথিত আছে উনি স্বপ্নযোগে আদেশ প্রাপ্ত হন শ্যামা মায়ের পূজা দেওয়ার জন্য-| নায়েব কাম দেবের বাড়ী ছিলো স্বরুপনগর থানার কৈজুড়ী গ্রামে।এই আদেশ প্রাপ্তির কথা রাজা কৃষ্ণচান্দ্র রায় কে জানানো হলে তিনি-মায়ের মন্দির এর জন্য ৭৫০ বিঘা জমিদান করেন৷তখন থেকেই শ্যামা মায়ের পূজা প্রথা এইগ্রামে চলে আসছে।এবার এই মন্দিরে পূজার শুভ উদ্বোধন করেন -উঃ ২৪ পরগনা জেলা পরিষদের সভাধিপতি বীনা মন্ডল, সাথে ছিলেন জেলা পরিষদের সহ-সভাধিপতি-কৃষ্ণ গোপাল ব্যানার্জী স্বরূপনগর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি সংগীতাকর ,মৎস্য কর্মধক্ষ আনসূয়া মন্ডল, কৃষি কর্মধক্ষ তুহিনা মোল্লা, সহ-অন্যরা।শ্যামামায়ের পূজা উপলক্ষে এই মন্দিরে প্রতিবছর ৫টি পাঠা উৎসর্গ করা হয় এখানে৷প্রতিবছর এই জাগ্রত মন্দিরে হাজার হাজার দর্শনার্থীদের ভীড় লক্ষ করা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.