জমজমাট পাঁচমুড়ায় টেরাকোটা মেলা

প্রশাসন

সাধন মণ্ডল, বাঁকুড়া- বাঁকুড়ার পোড়ামাটির গ্রাম বলে পরিচিত পাঁচমুড়া।এই গ্রামেই চলছে পঞ্চম বর্ষ টেরাকোটা মেলা। এর উদ্যোক্তা বাংলা নাটক ডট কম ও পশ্চিমবঙ্গ সরকার। পরিচালনায় পাঁচমুড়া মৃৎশিল্প সমবায় সমিতি। এ বছর মেলার উদ্বোধন করেন তাললডাংরা বিধানসভার বিধায়ক সমীর চক্রবর্তী ও বাঁকুড়া জেলা শাসক ডঃ উমাশঙ্কর এস। পাঁচমুড়ার টেরাকোটার মূর্তির কদর রয়েছে সারা দেশ জুড়ে এ কথা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আসা সমস্ত অতিথিরা স্বীকার করেন। এই মেলার প্রচারে ও প্রসারে সর্বতোভাবে সাহায্য করবেন বলে কথা দিয়েছেন এই এলাকার বিধায়ক তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্নেহধন্য সমীর চক্রবর্তী। মেলায় গৃহস্থালি জিনিসপত্র থেকে শুরু করে মনসা চালি, মাটির হাতি ঘোড়া, বিক্রি হচ্ছে জোর কদমে। মৃৎশিল্পী ও শিল্পীর পরিবারদের মুখে একটু হাসি ফুটেছে। প্রায় প্রত্যেকদিন বিভিন্ন স্থান থেকে হাজার হাজার দর্শক ও পর্যটক হাজির হচ্ছেন ও কেনাকাটা করে বাড়ি ফিরছেন। প্রতিদিনই মেলায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হচ্ছে। সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন ও প্রশংসা কুড়িয়েছেন পাঁচমুড়া মহাবিদ্যালয় এর বাংলা বিভাগের অধ্যাপক পার্থ সেনগুপ্ত মহাশয়। উদ্বোধনের দিন তিনি দুটি দেশাত্মবোধক গান গেয়ে উপস্থিত অতিথিদের মন জয় করে নিয়েছেন এছাড়া অন্যান্য দিনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেও পার্থ বাবু একান্ত ভাবে রয়েছেন। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে এলাকার শিল্পীরা ছাড়াও বাইরে থেকে শিল্পীরাএসে সংগীত, নাটক পরিবেশন করে যাচ্ছেন। এক প্রশ্নের উত্তরে অধ্যাপক পার্থ সেনগুপ্ত বলেন অধ্যাপনা ছাড়াও সংগীত আমার প্রিয় বিষয়। অধ্যাপনারসাথে সাথে সংগীত চর্চা নিয়ে রয়েছি। অনুষ্ঠানের ডাক পেলেই ছুটে যাই।মৃৎশিল্পী পশুপতি কুম্ভকার বলেন এই শিল্পকর্মকে বাঁচিয়ে রাখতে সরকারী উদ্যোগ যদি না থাকে তাহলে এটা হারিয়ে যাবে কেননা বর্তমানে খাটুনির চেয়ে মূল্য কম পাওয়া যায়। তাছাড়া উৎপাদিত দ্রব্যগুলি কলকাতার বাজারে বাজারজাত করা আমাদের পক্ষে কষ্টকর, তাই সরকারিভাবে পাইকারি হারে এখান থেকে এই শিল্প সামগ্রী কিনে নিয়ে গিয়ে কলকাতায় বিপণনের ব্যবস্থা করলে ভালো হয়। সত্তোরর্ধ শিল্পী গণপতি কুম্ভকার বলেন আমাদের বয়স হয়েছে সেভাবে মাটির কাজ করতে পারি না তবে ছেলেদের মধ্যে এই শিল্পকর্ম ঢুকিয়ে দিয়েছি। মেলার সময় একটু বেশি কেনাকাটা হলেও সারা বছর সেভাবে কেনাকাটা হয় না তাই সরকারী উদ্যোগ বিশেষভাবে প্রয়োজন । এছাড়া কলকাতার সাথে সরাসরি যোগাযোগের জন্য কলকাতা থেকে মুকুটমনিপুর ভায়া কামারপুকুর,বিষ্ণুপুর,পাঁচমুড়া সরকারী বাসের ব্যাবস্হা একান্ত প্রয়োজন। পাঁচমুড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান তরুন কুম্ভকার বলেন এ ব্যাপারে বিধায়কের সাথে কথা বলবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published.