সালানপুর ব্লকের রূপনারায়নপুরে নির্বাচনী সভা সারলেন তৃণমূল প্রার্থী শত্রুঘ্ন সিনহা

কাজল মিত্র :-আসানসোল লোকসভা নির্বাচনের ঘোষণা হবার পরথেকেই প্রতিটি রাজনৈতিক দল নিজেদের প্রচার নিজের মত করে করতে শুরু করে দিয়েছে ।প্রচারে কেউ একচুল পিছিয়ে নেই ।প্রতিদিনের মত বুধবার সালানপুর ব্লকের রূপনারায়নপুরে নির্বাচনী প্রচার এর পাশাপাশি কর্মী সভার সারলেন তৃণমূল প্রার্থী শত্রুঘ্ন সিনহা।
এদিন এই সভাটি অনুষ্ঠিত হয় হিন্দুস্থান কেবলস এর শ্রমিক মঞ্চ সংলগ্ন মাঠে ।প্রার্থী শত্রুঘ্ন সিনহা ছাড়া উপস্থিত ছিলেন সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়,
মন্ত্রী মলয় ঘটক,আসানসোল মেয়র তথা বারাবনি বিধায়ক বিধান উপাধ্যায়,যুবনেতা মুকুল উপাধ্যায় ,সালানপুর ব্লক সভাপতি ফাল্গুনী ঘাসি,জেলাপরিষদ এর করমাধ্যক্ষ মহম্মদ আরমান ,
সালানপুর ব্লক তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক ভোলা সিং
সহ অন্যান্যরা ।
বক্তৃতার শুরুতেই তৃণমূল প্রার্থী শত্রুঘ্ন সিনহা বলেন মমতা দিদির নির্দেশ আর বাংলার মানুষের ডাকে আমি আসানসোল উপ নির্বাচনে লড়তে নেমেছি।দিদি যখন বলল তোমাকে ভোটে লড়তে হবে আমি না করতে পারিনি । কারণ দিদি এই মুহূর্তে দেশের শুধু জনপ্রিয় নেত্রী নন,তিনি এই মুহূর্তে বিশ্বের জনপ্রিয় নেত্রী, তিনি আগামী দিনের ভাবী প্রধানমন্ত্রীও।বহিরাগত প্রসঙ্গে শত্রুঘন সিনহা জানান বিরোধীরা আমাকে বহিরাগত বলছে।তারা জানে না এই বাংলার সঙ্গে আমার আত্মার যোগ রয়েছে ।আমার ফিল্মি ক্যারিয়ার শুরু হয় এই বাংলা থেকেই। মৃনাল সেন আমাকে সিনেমার জন্য নির্বাচিত করেন। সিনেমায় কিভাবে অভিনয় করতে হয় তা আমাকে শিখিয়েছেন ঋত্বিক ঘটক । তখন থেকেই বাংলার কাছে আমি ঋণী।বাংলা, বাঙালি, বাংলা ভাষা, বাংলার খাবার সব কিছুর প্রতি আমার দুর্বলতা বরাবরের।তিনি বলেন আমি বহিরাগত নয় বহিরাগত দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কারণ তিনি গুজরাটের বাসিন্দা হয়েও ভোটের লড়েন উত্তর প্রদেশ থেকে।বলেন এখান থেকে আমি রেকর্ড ভোটে জিতবো । সংসদে গিয়ে বাংলা আর আসানসোলের মানুষের জন্য কাজ করবো।
একই সাথে এই কর্মী সভায় শতাধিক মানুষ বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান করেন ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.