শুভেন্দুর বিরুদ্ধে একই অভিযোগে দুটি আলাদা আদালতে মামলা চলতে পারেনা, হাইকোর্ট 

মোল্লা জসিমউদ্দিন,  
গত বুধবার দুপুরে কলকাতা হাইকোর্টে রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে তৃণমূল সাংসদ  অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এর দায়ের করা মানহানির মামলায় স্থগিতাদেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট। এদিন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি শুভাশিস দাশগুপ্ত  এই নির্দেশ  দিয়েছেন। আদালত সুত্রে প্রকাশ, একই অভিযোগের ভিত্তিতে দু’টি পৃথকভাবে মামলা করা যাবে না, ডায়মন্ডহারবার আদালতে  মামলায় এই স্থগিতাদেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট। এই একই অভিযোগের ভিত্তিতে অন্য একটি মানহানির মামলা বর্ধমান জেলাকোর্টে দায়ের করা হয়েছিল।এই  মামলাটি হাইকোর্টের নির্দেশে কলকাতা দেওয়ানি আদালতে (সিটি সিভিল কোর্ট) স্থানান্তরিত করা হয়েছে। মামলাটি কাঁথিতে স্থানান্তরের পিটিশন  দাখিল করেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী ।  তা পরে খারিজ করে দেয় কলকাতা হাইকোর্ট ।গত বিধানসভা ভোটের আগে খেজুরির সভা থেকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এর বিরুদ্ধে ‘অসম্মান সূচক’ মন্তব্য করেছিলেন শুভেন্দু, এই অভিযোগ তুলে শুভেন্দু কে   আইনি চিঠি পাঠিয়েছিলেন অভিষেক। সেখানে শুভেন্দুকে দুদিনের  মধ্যে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে বলা হয়। তবে আইনী চিঠির উত্তর দেননি  নন্দীগ্রামের বিধায়ক। এরপরেই তাঁর বিরুদ্ধে বর্ধমান জেলা আদালতে  একটি মানহানির মামলা দায়ের করে থাকেন অভিষেক। এই মামলাটিই গত বছর বর্ধমান থেকে কাঁথিতে স্থানান্তরের আবেদন জানিয়ে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল্রন শুভেন্দু অধিকারী । শুভেন্দুর  আর্জি ছিল, -‘ বিরোধী দলনেতা হওয়ার কারণে তাঁকে একাধিক কাজে ব্যস্ত থাকতে হয়। তা ছাড়াও যে মন্তব্যের জন্য মামলা করা হল সেটি ওই জেলার ঘটনা নয়। তার পরেও সেখানে বিচার চললে তাঁর পক্ষে সঠিক সময়ে যাওয়া অনেক ক্ষেত্রে সম্ভব হবে না। তাই ওই মামলাটি কাঁথিতে স্থানান্তর করা হোক’। কলকাতা হাইকোর্ট এই  আবেদন খারিজ করে  দেয় এবং এই মামলাটি পাঠানো হয় সিটি সিভিল  কোর্টে। এর মধ্যেই ডায়মন্ড হারবার আদালতেও শুভেন্দুর বিরুদ্ধে মানহানির অভিযোগে মামলা দায়ের করে থাকেন অভিষেক।তাই একই অভিযোগ নিয়ে দুটি ভিন্ন আদালতে মামলা চলতে পারেনা বলে এদিন কলকাতা হাইকোর্টের তরফে জানানো হয়েছে। মানহানি মামলা টি সিটি সিভিল কোর্টেই চলবে বলে জানা গেছে 

Leave a Reply

Your email address will not be published.