বন্ধন,

গোপা ভট্টাচার্য্য,

কুয়াশার আমেজ মেখে শিশির ভেজা শীতের সকালে,
চায়ের কাপে যে উষ্ণতা খুঁজে পাই,সেখানে আছে শুধু তৃপ্তি।

সবুজে ঘেরা ঘন বনানীর গহীন গুঞ্জনে কান -পাতি নৈঃশব্দের ফিসফিস কথোপকথন শুনি,
নিবিড় পারিবারিক বন্ধনে অদেখা যে সম্পর্ক গাঁথে বৃক্ষরাশি,
অনুভবে ছুঁই তাদের মুগ্ধতায় . . .
শিকড়ে শিকড় মেলে, ডাল-পালাদি ছুঁয়ে থাকে
স্নেহ-মমতার অঞ্চলে,
নিবিড় আলিঙ্গনে নিখাদ ভালোবাসার রূপকথা লিখে যায় অরণ্যের বুকে,
চোখ জুড়ানো এই দৃশ্যপট জলছবি হয়ে মননে বেঁচে থাকে চিরন্তর . . .
প্রকৃতির এই অদ্ভুত সুরেলা প্রাণের মেলায়
সম্মোহিত মন-প্রাণ . . . শুনি নীরবে,গেয়ে যাওয়া জীবনের গান!

সীমান্তের ওপারে চলে যাওয়া খেয়ালী সুখ,
ফিরে আসে ইচ্ছেমতো, ছুঁয়ে যায় অবাধে
অনুভূতির গুপ্তকুটির।

গা-ছাড়া বিবাগী আবেগও শেকড় ছড়ায়,
স্পন্দিত হয় হৃদয়, প্রাণের ছোঁয়ায় . . .
বৃষ্টি তার একতারার সুরে মাদকতা ছড়ায়,
অবাধ্য ভাবনারা পরতে-পরতে রূপ বদলায়,
প্রাণের ছোঁয়ায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.